মাল্টি লেভেল মার্কেটিং : বৈধতার সংকট

জিয়াউর রহমান মুন্সী

 

সূচীপত্র

 

প্রথম প্রবন্ধঃ Multi Level Marketing: Crisis of Legality 

Illustration

Illustration II:  

Exploitation with consent:

Statements of Commentators of the Quran

দ্বিতীয় প্রবন্ধঃ মাল্টি লেভেল মার্কেটিংবৈধতার সংকট

যাদের জন্য প্রবন্ধঃ

ভিত্তিগত দিক (substantive and theoratical aspect)

শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে বৈধ প্রমাণ করার রকমারী উপমাঃ

সদকায়ে জারিয়াঃ

পুত্রের আয়ে পিতার অধিকারঃ

অনাথ শিশুকে শিক্ষিত কর্মক্ষম করে তোলাঃ

বাড়ী ভাড়া প্রসঙ্গ

অলস বসে থেকে মুনাফা লাভের দৃষ্টান্ত থেকে প্রমাণ সংগ্রহঃ

সম্মতির বাহানাঃ 

পদ্ধতিগত দিক (Procedural Aspects)

বর্ধিত মুল্যে বিক্রয়ঃ

ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টলেভেল মার্কেটিং শীর্ষক সেমিনারের উপাখ্যানঃ

মধ্যস্বত্বভোগীদের ব্যাপারে ইসলামের অবস্থানঃ

বিশেষজ্ঞদের মতামতঃ

শেষকথাঃ

 

তৃতীয় প্রবন্ধঃইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টিলেভেল মার্কেটিংশীর্ষক বইয়ের পর্যালোচনাঃ

প্রথার  (عرف Custom) আইনগত মর্যাদাঃ

শরীয়তের পরিপন্থী কোন প্রথা-ই গ্রহনযোগ্য নয়ঃ

ডঃ আব্দুল আজিজ আযযাম এর ব্যাখাঃ

“প্রয়োজন নিষিদ্ধ কাজকে বৈধ করে দেয়” – মূলনীতিটির তাৎপর্যঃ

তিনটি কঠিন শর্ত পূরণসাপেক্ষেই কেবল একটি নিষিদ্ধ কাজ সিদ্ধ হয়ঃ

রশীদ রেজার ব্যাখ্যাঃ

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের বৈধতার প্রবক্তাদের সবচেয়ে বড় ত্রুটিঃ কমিশন ও চেইন পিরামিডাল কমিশনের মধ্যকার সূক্ষ্ণ পার্থক্য নির্ণয়ে ব্যার্থতাঃ

মধ্যস্বত্ত্বভোগীর রকমফেরঃ

মাল্টিলেভেল মার্কেটিং বনাম মুদারাবা (Profit Loss Sharing), মুশারাকা (Partnership), কাফালা (Bailment) ও ওয়াকালা (Agency):

শ্রমবিহীন মুনাফাকে হালাল করার এক অদ্ভূত যুক্তিঃ

 

ব্লগ বিতর্ক

 

Multi Level Marketing:

Crisis of Legality

ABC Ltd. is a company doing the business of Multi-level Marketing. As its nature demands, it deals with NETWORKING BUSINESS i.e. a person, in order to get involved with it, has to buy certain products from the Company ensuring for himself certain BUSINESS POINTS with which he will be BLESSED with the OPPORTUNITY of recruiting new buyers for the products of the Company in his right and left sides. Thus starts the CHAIN REACTION of his labour that means the new buyers in his right and left sides will buy certain products from the Company and thereby become entitled to recruit new buyers under them. And from every new transaction the members of upper level will get commission. The task of the earlier person towards the latter is to supervise and encourage him to recruit more and more buyers. The severity of tension of the supervisor varies from time to time depending upon the activeness and consciousness of the new buyers. If they are lazy, inactive or unconscious, he has to spend his time and money in MANIPULATING them. On the other hand if they are active enough, the senior(s) may sit idle or may continue his MANIPULATING work.

Mr. X is a curious observer of this business. As a Muslim he has been critically analyzing it and poses certain questions regarding its validity.

The first objection is about the sale price. ABC Co. Ltd. is selling goods at a price which is approximately double the market price. For example the Company sells a bottle of oil at 600 Taka. while the same amount of oil with same components in ordinary market is sold at 300 to 350 Taka.

Now M. X wants to know from the Company  what are the reasons behind such a great difference of price (approximately double the ordinary market price). The Company shows the following reasoning:

Though the buyer has to pay approximately double the market price the Company gives him certain BUSINESS POINTS on the basis of which he can earn money LATERON by providing new buyers. When the new buyer will buy the bottle of oil the earlier buyer will be given a portion of benefit arising out of the later transaction and thereafter the CHAIN REACTION OF HIS FIRST LABOUR will begin ensuring more and more commission from every new transaction beneath his line.

But Mr. X says, it is not acceptable for the following reasons:

It is an implied CHEATING, because the Company behaves in such a way that the buyer thinks that with such a transaction he is getting goods AT THE ORDINARY MARKET PRICE as the Company propagates

As in the Traditional Marketing System advertisement cost and numerous intermediaries multiply the price of goods (otherwise people could buy goods at a very lesser price than the present market price) and

As in the Traditional Marketing System the difference money between the production cost and the market price is enjoyed by a very few portion of the society

And therefore the Multi-Level Marketing System has come into existence as a MERCY to “MANY” instead of “FEW” (as Multi-Level Marketing System does not believe in advertisement and therefore it will just distribute the difference money between the production cost and the market price among MANY and it NEED NOT INCREASE the ordinary market price).

But the practice is that the present ABC Co. Ltd. sells its oil bottles AT A PRICE HIGHER THAN THE ORDINARY MARKET PRICE ensuring huge benefits vis-à-vis the ordinary businessmen in the guise of MERCY to “MANY” instead of “FEW”. (Imagine the scenario that despite so much advertisement cost the traditional businessmen with the existing market price, we are told by the proponents of MLM, are gathering huge profits. Now what’s about the amount of profit the ABC Co. Ltd is gathering without any advertisement cost and with so much high price i.e. approximately double the ordinary market price?). Is it not a cheating to hide one’s such exploiting character and to express his artificial philanthropic character?

Illustration 1:

 

X buys a set of oil bottles (10 in number) directly from the ABC Co. Ltd. with 6000 Taka whose actual market price is at best 3500 to 3800 Tk. Here the Company tells Mr. X to be glad enough that in ordinary markets with such money he may gain only 10 bottles of oil and nothing else. And here he gets along with 10 bottles of oil certain LUCRATIVE BUSINESS POINTS to gain benefit after benefit. But two points are very CLEVERLY CONCEALED that (1) here Mr. X is exploited to the extent of 2200 Taka (6000-3800 =2200) at a single transaction of 6000 Taka only and (2) he will be entitled to get certain commission only when he can help the Company to EXPLOIT 2200 in every new transaction of 6000 Taka from the new buyers. Had these points been revealed, no person of sound mind would have accepted such a plan.

NOW Mr. X manipulates Y to buy bottles of oil from the Company. Y comes and buys 10 bottles of oil with 6000 Taka. Here Mr. Y is exploited to the extent of 2200 (6000-3800) Taka at a single transaction. His exploitation money is now shared by the Company and Mr. X. Both of them are now happy with eating the money exploited from Y. Y, to have happiness like X, encourages  Z to buy goods from ABC Ltd. Z answers positively and buys goods from the Company. Now Z is exploited in the same way as both Y and X were exploited before. The money exploited from Z (2200 Taka) is now very happily shared by ABC Co. Ltd., X and Y. Then starts the journey of Z in encouraging and manipulating new buyers to be exploited by the Company, himself and his seniors

From the illustration it is clear that IN EVERY NEW TRANSACTION A NEW BUYER IS EXPLOITED AND HIS EXPLOITATION MONEY IS HAPPILY SHARED BY THE COMPANY AND HIS SENIORS.

How can a man of sound mind accept such exploitation in every new phase?

Furthermore, X raises the question that whenever a person pays 6000 Taka he gets goods of 3800 Taka. But what does he get in lieu of his EXTRA MONEY i.e. 2200 Taka (6000-3800)? The Company readily answers that he gets LUCRATIVE BUSINESS POINTS.

3800 Taka in lieu of 10 bottles of oil

6000 Taka

2200 Taka in lieu of BUSINESS POINTS

But X is not convinced that BUSINESS POINTS may be the CONSIDERATION for the EXTRA MONEY, because CONSIDERATION is basically a DETRIMENT of a party to the contract.  Here the Company does not suffer any DETRIMENT / LOSS by giving abstract BUSINESS POINTS, because it ensures a chronological BENEFIT instead of any DETRIMENT. For full understanding let’s go through the following illustration.

Illustration 2:

The ordinary market price of potato is 24 Taka per kg. P, a new businessman in the market, claims 40 Taka for every kg of potato arguing that

Those who sell potato at 24 Taka per kg are the TRADITIONAL POTATO SELLERS.

Originally potato is 8 Taka per kg. As there are, along with the advertisement cost, three intermediaries (at least) between the producer and the general consumer namely, the AGENT, the WHOLESELLER and the RETAILER each claiming a specific amount of profit at every stage resulting in the rise of price and ultimately people are bound to buy potatoes at a very high price i.e. with 24 Taka per kg.

And therefore we have invented a new scientific system and that is to cut up advertisement cost and the intermediaries and distribute THAT MONEY among our customers.

The customers ask if you don’t have any advertisement and other unnecessary costs then why are you claiming more price than the ordinary market price? They give no straight cut answer. Rather they say for the extra money you will be given some BUSINESS POINTS to income more money.

At first the buyer does not understand its real significance but ultimately it becomes clear to him that the Company by selling 1 kg potato to him exploits 16 Taka (40-24) and just to mitigate his grievance the Company allures him to manage new buyers from whom the Company will similarly exploit 16 Taka per kg of which the new buyers will not be aware at the first instance and he will be given a portion of that EXTRA MONEY. And the Company says this opportunity to exploit new buyers is the CONSIDERATION for EXTRA MONEY taken from him.

Will the people at large tolerate such activity of the potato seller in the market in the guise of honest businessman? And will they accept that OPPURTUNITY TO EXPLOIT other prospective potato buyers as a valid CONSIDERATION?

X, now, comes to the point of validity of BUSINESS POINTS as CONSIDERATION from the side of the ABC Co. Ltd. for the EXTRA MONEY taken from a buyer. He thinks it can not be a VALID CONSIDERATION because it does NOT cause any DETRIMENT to the Company. Rather it opens the door of further BENEFIT (and it is universally accepted that CONSIDERATION is always a DETRIMENT and not a BENEFIT).

Thus the whole proposition of Mr. X (that this type of business transaction can not be treated as invalid) is based upon the following two reasons:

v      In every new transaction the Company ensures its EXTRA BENEFIT (i.e. the extra money) but the benefit of the other is hanged with another uncertain future transaction leading to two vices

ü       absence of CONSIDERATION from the part of the Company for the EXTRA MONEY, and

ü       violation of the PROHIBITION of Muhammad, the Messenger of Allah, (Peace Be Upon Him) on amalgamating two independent contracts into a single one (here one contract is for the goods and another is regarding dealership or distributorship of the Company) that paves the way for  ربا (usury). The text of the hadis is “

نهى رسول الله صلى الله عليه و سلم عن البيعتين فى بيعة

i.e. the Prophet (PBUH) has forbidden (the amalgamation of) TWO CONTRACTS INTO A SINGLE ONE. (Nasaai, Tirmiji, Ibnu Majah and others)

ü       To claim such an EXTRA MONEY (of which most of the buyers are not made aware at the time of the transaction) is both a DECEPTION and EXPLOITATION.

Now ABC Co. Ltd. says,

“I am at liberty to claim for my goods as high a price as I wish. The Shariah does not prohibit me to do so. Who are you to call my price EXPLOITATION? Am I compelling any one to buy my goods? People are buying goods from my Company being satisfied with my price. And their satisfaction is manifest in their behaviour, because whenever they come to buy my goods they sign a CONTRACT with my Company, they give their CONSENT to the CONTRACT leading to a VALID BUSINESS TRANSACTION as per the following Quranic verse:

لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل الا ان تكون تجارة عن تراض منكم 

i.e. Don’t eat the property of one another in a wrong way but (eat it) when it will be a BUSINESS WITH YOUR MUTUAL CONSENT.

 

X replies:

The Company has shown basically two arguments in favour of its non-exploiting character, i.e.

  • There is no limitation in price hike and
  • His contract is on the basis of MUTUAL CONTRACT and therefore no question of EXPLOITATION can arise.

First of all whether something is EXPLOITATION or not depends upon circumstances regard being had to the particular socio-economic conditions of a given society. For better understanding we have to differentiate between PROFIT and EXPLOITATION. Profit is the general goal of any business. Without it no business can run. But there is a tolerable limit though it varies with the variance of time and place. Whenever it crosses the limit it turns into EXPLOITATION. The ordinary businessmen are accruing enough profits from the general market price, then why should the EXCESSIVE PRICE fixed by the Company unilaterally not be treated as EXPLOITATION?

As to the first base of their argument (i.e. there is no limitation imposed by the Shariah on price hike) it can be said that it is not tenable. Because

ü       This type of opinion will bring about a catastrophe for the common people, as there will remain no authority to protect them from the clutches and exploitation of the millionaire businessmen

ü       Secondly, then the authority of the Government to interfere in the market becomes nullified. If this power can not be exercised by the Government then what is the necessity of this institution? Is it just to protect the few   millionaire businessmen against the mass people?

ü       Lastly, the thousand year old institution of الحسبة  (MARKET INSPECTION AUTHORITY) of Islamic law is sufficient to nullify the Company’s argument. Because this institution was created just to protect the mass people from the exploitation of the businessmen of the market.

[Furthermore the Company argues that their standing (i.e. they can demand as high a price as they wish) is based upon tradition related to Hazrat Ali. According to this tradition, Ali went to the market and bought a horse with 60 dirhams. On his way him, a man asked the price of the horse and Ali replied accordingly. The man wanted to buy it and requested Ali to fix the price. Ali said, “I will say nothing. It is upto you”. The man replied: I will pay 129 dirhams for it. Ali said, “I have no problem”. Then the contract was concluded.

Here from the Company argues that Ali demanded double the buying price and therefore it is a clear indicative that they have the right to demand the price which is approximately double the market price.

But X says, this type of conclusion can not be drawn from the above tradition. Because here Ali did NOT DEMAND ANY PRICE and it was the buyer who willingly gave 120 dirhams for the horse. On the other hand it is the Company who demands the EXCESSIVE PRICE and the buyer has NO BARGAINING POWER. Thus the two are different from each other.]

Their second argument is that as the contract is concluded on the basis of MUTUAL CONSENT it is absolutely valid as per the Quranic verse يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل الا ان تكون تجارة عن تراض منكم i.e. do not eat up your property among yourselves in a wrong way but (eat it) if it be (the consequence of) a valid business contract on the basis of your MUTUAL CONSENT.

X’s reply:

Mere the presence of MUTUAL CONSENT can not validate a transaction which is per se invalid. Otherwise lottery, speculation and riba (usury) all are to be treated as valid because all of them are concluded with mutual consent. First of all you have to acknowledge that this type of business contains two vices

 

1. EXPLOITATION by demanding EXCESSIVE PRICE and

2. CONCEALMENT of such exploitation to the ignorant people.

These two vices are of such a grave nature that the presence of any one of them in a contract is sufficient to invalidate it. Because the first one (EXPLOITATION) is a clear ظلم   (injustice) while the second (i.e. CONCEALMENT) is a حداع (DECEPTION). AND BOTH OF THEM ARE ILLEGAL UNDER ISLAMIC LAW.

Now for better understanding of my point you have to go through the following quotations of prominent interpreters of the Quran regarding the EXPLANATION of the verse ( يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل الا ان تكون تجارة عن تراض منكم  i.e. O’ you who believe do not eat up your property among yourselves in a wrong way but (eat it) if it be as a consequence of a valid business contract on the basis of your MUTUAL CONSENT) which is the prime basis of their argument.

Ibn Jarir Tabari quotes the eminent interpreter SUDDI

( يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل )  نهى عن اكلهم اموالهم بينهم بالباطل و بالربا و القمار و البخس و الظلم الا ان تكون تجارة ليربح فى الدرهم الفا ان استطاع

i.e.  (O’ you who believe do not eat up your property among yourselves in a wrong way but (eat it) if it be as a consequence of a valid business contract on the basis of your MUTUAL CONSENT) Allah has forbidden (the believers) eating their property among themselves in a wrong way i.e. with riba, lottery, VERY LOW PRICE or VERY HIGH PRICE but there is no problem if he achieves profit of thousand dirhams in a single dirham provided that it be the outcome of a valid business.           

 جامع البيان)  vol. IV p. 42)

 

After few lines the interpreter mentions the statement of QATADAH

التجارة رزق من رزق الله و حلال من حلال الله لمن طلبها بصدقها و برها ….ان التاجرالامين الصدوق مع السبعة فى ظل العرش يوم القيامة

i.e. Business is a sustenance from Allah and it is a valid thing recognized by Allah. This validity is only for those who perform their BUSINESS WITH TRUTH and RIGHTEOUSNESS ….  And the businessmen who are HONEST and TRUTHFUL  will be placed under the shade of the Throne of Allah with the class of chosen seven in the day of resurrection.

(ibid p.45)

And the Prophet (Peace Be Upon Him) says,

البيع عن تراض و الخيار بعد الصفقة و لا يحل لمسلم ان يغش مسلما

i.e. The contract of sale is to be concluded with mutual consent. After the agreement there should be the option (of return and repudiation etc.). And it is not legitimate for a Muslim to DECEIVE another Muslim.

(ibid p.46)

Muhammad Asad interprets:

 

The believers are prohibited from devouring another person’s possessions wrongfully even if that other person –being the weaker party – agrees to such a deprivation or EXPLOITATION under the stress of circumstances.

 (The Message of the Quran, pp. 142-144)

Abul A’la Maududi:

The expression wrongfully embraces all transactions which are opposed to righteousness and which are either legally or morally reprehensible….. Fraudulent transactions also seem to be based on the MUTUAL CONSENT of the parties concerned that kind of CONSENT, however, is based on the false assumption that no fraud is involved in the transaction. No body who knew that he would be subjected to fraud would consent to be a party to that transaction.

 

 (Towards Understanding the Quran, New Delhi, vol. II p. 32)

Mufti Muhammad Shafii:

 

To explain the first condition we can say that trade is the name of the exchange of one commodity with the other. Having commodity on one side and having no commodity against it is not TRADE. IT IS DECEPTION….The same tjhing happens in speculation and gambling. Here, the commodity does exist on one side, but the existence of a commodity against it is doubtful. [PONDER OVER THAT THE COMPANY’S INTEREST HAS BEEN ENSURED BUT THAT OF THE CLIENT IS VERY MUCH DOUBTFUL].

(Ma’aariful Quran)

 

Under the caption “The reality of the condition of MUTUAL CONSENT” the interpreter writes,

However, there is a third kind in which there is commodity on both sides, and apparently the transaction has been effected with MUTUAL CONSENT, but the consent of one party has been obtained by compulsion and not by his free will. Therefore, this third kind is also included in the second one. For example, a person or company collects articles of daily use from all over the market, builds up a stock, raise prices on the higher side and starts selling. Since this is not available elsewhere in the market, the customer has no choice but to buy it from him at whatever price he may be selling it. In this situation, though the customer himself walks into the store and, obviously, buys it with his consent, but this “consent” is an outcome of compulsion and therefore, it is null and void.

 (ibid)

At this stage Mr. X raises the question regarding the validity of the benefit of CHAIN REACTION OF LABOUR (i.e. the Company gives the buyer certain BUSINESS POINTS on the basis of which he can earn money LATERON by providing new buyers. When the new buyer will buy the bottle of oil the earlier buyer will be given a portion of benefit arising out of the later transaction and thereafter the CHAIN REACTION OF HIS FIRST LABOUR will begin ensuring more and more commission from every new transaction beneath his line.)

The Company tries to defend himself by referring to صدقة جارية (charity with continuous effect) and the Father-Child Relationship. They say if one can gain ثواب   (spiritual reward) for his deeds in a CHAIN REACTION WAY and a father can claim the benefit of his son’s income, then what’s the problem if the Company introduces the concept of BENEFIT OF CHAIN REACTION  OF LABOUR in MLM business?

X says, the example of صدقة جارية (charity with continuous effect) is totally irrelevant in business transactions, because the first one is an ABSTRACT AND SPIRITUAL GAIN which has NO MERCANTILE OR FINANCIAL VALUE while the latter is a purely MATERIAL QUESTION involving MONETARY ISSUES. These are too different to be compared. When Allah gives ثواب   (spiritual reward) of صدقة جارية (charity with continuous effect) in a chain reaction way, Allah gives it from his own treasure which is not financed by human wealth; Allah does not give it by snatching from human being and therefore no question of EXPLOITATION of people is involved in صدقة جارية (charity with continuous effect). On the other hand the Company gives the benefit of benefit of chain reaction of labour by EXPLOITING EVERY NEW BUYER IN A SEVERE WAY and not out of his own treasure. Remember that for every new transaction the Company has fixed its own interest while the interest of the distributors are hanging and varies from time to time. Thus by giving the benefit from the pockets of new buyers and not of his own pocket the Company does not have any LEGITIMATE RIGHT to compare it with صدقة جارية (charity with continuous effect) where Allah gives it from his own treasure and not from the treasure of any man.

Now remains the point of PARENT-SON RELATIONSHIP. This logic seems to have some weight. But a closer look will reveal that such comparison of a BUSINESS TRANSACTION with PARENT-SON RELATIONSHIP and application of the legal consequence of one on the other are not correct from several aspects:

  • First of all, father’s right in the property of his son is not the result of a BILATERAL AGREEMENT. Rather it is the Shariah itself who declares rights of the father in the property in an unambiguous term. The Prophet (PBUH) says,

انت و مالك لابيك

i.e. both you and your property are for the benefit of your father.

Here the Shariah does not speak about a general rule to validate the claim of one person in the property of other.

  • Secondly, father has NO BENEFIT OF THE CHAIN REACTION OF LABOUR, his right is limited to the property of his son only; he can not claim any thing from the property of his daughter though she has been raised and taught with his money. In the same way father can not claim any benefit from the property of his grandson and great grandson how low so ever in the presence of a son. So it is not a case of CHAIN REACTION OF LABOUR.

Moreover it is to be mentioned here that if once the DOCTRINE OF CHAIN REACTION OF LABOUR is introduced in our society without any support from the Quran and the Sunnah, it should be applied in all cases. Then just imagine the scenario where the primary school teachers are claiming a share/commission in the income of their previous students (who are millions in number) and in the same way thousands of people from different sectors of our society demanding the benefit of CHAIN REACTION OF LABOUR.

At last Mr. X raises the question about the validity of the TREE PLANTATION PROJECT where it is said that after 12 years you will get not less than 30000 Taka. X says, then what is the difference between ربا  (prohibited interest) and such type of predetermining the benefit of one party in any business transaction? The Company is yet to answer the question.

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংবৈধতার সংকট

 

পাশ্চাত্যে উদ্ভূত মাল্টি লেভেল মার্কেটিং বা নেটওয়ার্কিং বিজনেস  মুসলিম বিশ্বের দেশগুলোতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। সপ্তদশ শতক থেকে বৈশ্বিক রাজনীতি অর্থনীতির নেতৃত্ব থেকে বিতাড়িত হয়ে মুসলিম অঞ্চল গুলো হয়ে পড়ে পাশ্চাত্যের সেবাদাসগোলাম। জ্ঞান চিন্তাগত বন্ধ্যাত্ব ছিল এর অপরিহার্য পরিণতি। নতুন শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ লোক তৈরী হলো বটে; তবে তা পাশ্চাত্যে উদ্ভূত তত্ত্বগুলোর অন্ধ অনুকরণের ক্ষেত্রেই কেবল। সৃষ্টিশীল চিন্তা তো দূরের কথা, প্রচলিত চিন্তাদর্শন মতবাদ গুলোকেও খালেস ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করার মতো যোগ্য লোকের সংখ্যা মারাত্মক ভাবে হ্রাস পেতে লাগলো।  আর ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞ জনগোষ্ঠীর মধ্যেও এমন সব আলেম খোঁজার মানসিকতা সৃষ্টি হয়ে গেলো যারা কোন রকম গোজামিল দিয়ে যেকোন বিষয়কে ইসলাম সম্মতবলে ঘোষণা দিতে পারে।

 

জনসংখ্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশ মুসলিম বিশ্বের জনবহুল দেশগুলোর  অন্যতম। সামগ্রিক ভাবে যাই হোক কিছু লোকের মধ্যে এখনো ইসলামের হালাল হারামের অনুসন্ধিৎসু মন অবশিষ্ট আছে। অর্থনৈতিক টানাপড়েনে তারা একদিকে জড়িত হতে চাচ্ছে নেটওয়ার্কিং বিজনেসে আবার অন্যদিকে অবৈধতার শংকাও মনে খটকা সৃষ্টি করছে। বক্ষমান নিবন্ধটি মূলত তাদের উদ্দেশ্যেই লেখা। নিবন্ধ এমন লোকদের জন্য নয় যারা বাড়তি আয়ের স্বার্থে ইসলাম বহির্ভূত পন্থায়ও কুছ পরওয়া নেহিঅথবা আজকের দুনিয়ায় এতোসব ইসলামী নিয়ম মেনে চলা সম্ভব নাকিংবা আরে! কত হারাম কাজ করে যাচ্ছি, তুলনায় এটা তো মামুলি ব্যাপারইত্যাকার রোগে আক্রান্ত।

মাল্টিলেভেল মার্কেটিং মূলত ডিস্ট্রিবিউটরদের নেটওয়ার্কের মাধ্যমে পণ্য ও সেবা বিক্রি করার একটি প্রক্রিয়া (A process of selling of goods and services through a network of distributors) । এ প্রক্রিয়ায় আপলাইন ও ডাউনলাইন নামে বহু স্তরের (Multi level) ডিস্ট্রিবিউটর তৈরি হয়।

ডাউনলাইনের কোন ব্যক্তি (চাই সে এক হাজার স্তর নিচের ডিস্ট্রিবিউটর হোক এবং সর্বোচ্চ আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটর তাকে নাই বা চিনুক) কর্তৃক বিক্রিত পণ্যদ্রব্যের একটি কমিশন আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটররা পেয়ে থাকে। এই  স্ট্রাকচারটি দেখতে অনেকটা পিরামিডের মতো।

কুরআন ও সুন্নাহ নির্দেশিত ব্যবসা ও শ্রম নীতির সাথে প্রচলিত মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর বিরোধ বেশ কয়েকটি দিক থেকে। এগুলোকে সাধারণত দু’টি ভাগে ভাগ করা যেতে পারে – (১) ভিত্তিগত (substantive and theoretical), (২) পদ্ধতিগত (procedural) ।

ভিত্তিগতদিক (substantive and theoratical aspect) :

 

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর ‘পদ্ধতি’ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকমের হলেও এর তত্ত্বগত ভিত্তিটি (theoretical basis) সবসময়ই এক রকম। আর তা হলো, নিম্ন লেভেলের ডিস্ট্রিবিউটর কর্তৃক বিক্রিত পণ্যের একটি কমিশন সর্বোচ্চ লেভেল পর্যন্ত পৌঁছে দেয়া। এই নীতিটি ইসলামের সাথে কতটা সাংঘর্ষিক তা বুঝার জন্য ইসলামের শ্রম নীতিটি প্রথমে ভালোভাবে বুঝে নেয়া প্রয়োজন।  সূরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটি (وان ليس للانسان الا ما سعي  অর্থাৎ মানুষ ঠিক ততো টুকুরই ফল পাবে যততুকু  সে নিজে করেছে) শ্রমনীতির ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক। এর পরের আয়াতে বলা হচ্ছে (لا تزر وازرة وزر اخري  অর্থাৎ একজন আরেকজনের বোঝা বহন করবেনা) । এ দু’টি আয়াত অনুযায়ী প্রত্যেক ব্যক্তির আয় ও দায় (income and liability) সবসময় ব্যক্তিগত পর্যায়ে সীমাবদ্ধ। তবে, শরীয়ত প্রণেতা নিজেই অন্যান্য আয়াত ও হাদীসে এ সাধারণ নীতিটির (general principle) কয়েকটি ব্যতিক্রম (exceptions) উল্লেখ করে দিয়েছেন। তন্মধ্যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ধনী লোকদের সম্পদে অভাবী মানুষের অধিকার এবং আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রে সদকায়ে জারিয়া, গোনাহে জারিয়া ও জীবিত লোক কর্তৃক কোন ভালো কাজের সওয়াব মৃত ব্যক্তির নিকট পাঠানো (ঈসালে সওয়াব) অন্যতম। এখানে উল্লেখ্য যে, শরীয়ত প্রণেতা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে সকল ব্যতিক্রম উল্লেখ করেছেন সেগুলো বাদ দিলে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটি ইসলামের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা ও শ্রমনীতির একটি প্রতিষ্ঠিত নীতি (established rule) ।

নাজমের ৩৯ নং আয়াত থেকে পরিষ্কার বুঝা যাচ্ছে, মানুষ কেবল তার নিজের শ্রমের প্রত্যক্ষ ফল লাভের অধিকারী। কারো নিযুক্ত কর্মচারী [1] না হলে একজন আরেকজনের শ্রমের ফলে অংশীদার হতে পারেনা। একই ভাবে মানুষ তার শ্রমের ফল কেবল নিকটবর্তী লেভেল থেকেই আশা করতে পারে; কোন ক্রমেই তা বহুস্তর (multi level) পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারেনা ইসলামের এই নীতিটি মানবীয় বুদ্ধি বিবেচনার সাথে সম্পূর্ণ সংগতিপূর্ণ। এমনকি যারা আল্লাহতে বিশ্বাস করেনা, তারাও অবচেতন ভাবে এই নীতিটি অনুসরণ করে চলছে। কয়েকটি উদাহরণ দিলে বিষয়টি আরো পরিষ্কার ভাবে বুঝা যাবে।

মানুষ সামাজিক জীব (social being)। কথাটির পেছনে মানবিকতার তুলনায় অসহায়ত্বের দিকটিই প্রবল। অর্থাৎ, মানুষ পৃথিবীতে সবচেয়ে অসহায় প্রাণী। তার এই অসহায়ত্ব তাকে বাধ্য করে সামষ্টিক জীবনযাপন করতে। তার পরিধেয় এক টুকরো বস্ত্রের পেছনে অসংখ্য বনী আদমের শ্রম জড়িত। অগণিত লোকের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ পরিশ্রমের ফলে এক মুঠো ভাত তার খাবার প্লেটে হাজির হয়। এক কথায়, মানুষ তার মৌলিক প্রয়োজনের একটিও অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ শ্রম ছাড়া পূরণ করতে পারেনা। এখন একজন ব্যক্তি কতজন লোককে পারিশ্রমিক দিতে নীতিগতভাবে বাধ্যমানবীয় সুস্থ বিবেক বলছে তাকে কেবল ব্যক্তির পারিশ্রমিক দিতে বাধ্য করা যেতে পারে, যে তার পেছনে প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়েছে; পরোক্ষ শ্রম নয়। আর এই নীতিটিই দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ব্যক্ত হয়েছে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটিতে (وان ليس للانسان الا ما سعي  অর্থাৎ মানুষ ঠিক ততো টুকুরই ফল পাবে যা সে নিজে করেছে) ।

একজন প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক তার প্রত্যক্ষ শ্রমের ফল দাবী করতে পারে, যা সাধারণত তাকে বেতন আকারে প্রদান করা হয়। কিন্তু কোন চুক্তি মূলে শিক্ষকের এ দাবী বৈধ হিসাবে বিবেচিত হতে পারেনা যে, তার ছাত্ররা যত জনকে শিক্ষিত করে কর্মক্ষম করে তুলবে এবং তারা ভবিষ্যতে যাদেরকে যোগ্য করে তুলবে তাদের প্রত্যেকের আয়ের একটি ক্ষুদ্র অংশ উর্ধ্বতন শিক্ষককে কমিশন আকারে দিতে হবে।

বলুন তো দেখি, শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে (multi level benefit of labour) মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে বৈধ ও নির্দোষ মনে করা হলে শিক্ষক সম্প্রদায়ের উক্ত দাবীকে কেন মেনে নেয়া হবেনা ? পৃথিবীর কোন সভ্য ও সুস্থ মনের অধিকারী জাতি এমন উদ্ভট দাবী মেনে নিবে বলে আমার মনে হয়না। কারণ এ নীতির ফলাফল তখন কেবল শিক্ষক সম্প্রদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবেনা। একই রকম দাবী উঠতে থাকবে কুলি, মজুর, শ্রমিক, ডাক্তার, প্রকৌশলী- এক কথায় শ্রমজীবি মানুষের প্রতিটি সেক্টর থেকেই। কারণ ইতোপূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, মানব সমাজের প্রতিটি ব্যক্তিই অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ শ্রমের উপর নির্ভরশীল। ঠাণ্ডা মাথায় একবার ভেবে দেখুনতো, সমাজের প্রতিটি সেক্টর থেকে এরকম দাবী উঠতে থাকলে আমাদের সামগ্রিক জীবনে কী ধরনের বিপর্যয় নেমে আসবে ? আর  যদি বলা হয় শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে (multi level benefit of labour) সব ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হবেনা, তাহলে জিজ্ঞাস্য হচ্ছে এই সীমিতকরণ হবে কিসের ভিত্তিতেবিশেষ করে সব ক্ষেত্রেই যখন আমরাশ্রমের খেলা’- দেখতে পাচ্ছি ?

এতোক্ষণের আলোচনায় এ বিষয়টি অত্যন্ত সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) কিছুতেই বৈধ বলে বিবেচিত হতে পারেনা। অথচ এ অবৈধ নীতিটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় তাত্ত্বিক ভিত্তি (theoretical basis)। এ ভিত্তি সরিয়ে ফেললে এ প্রকারের বিজনেস টিকে থাকতে পারে না।

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং  শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) তত্ত্বটি কিভাবে জড়িয়ে আছে অংশে আমরা তা আলোচনা করবো।

আমি কোন সাধারণ কোম্পানী থেকে পণ্য কিনে অপরজনের কাছে বিক্রির মাধ্যমে লাভবান হওয়ার বৈধ অধিকার রাখি। অনুরূপ ভাবে কোন ক্রেতা সংগ্রহ করে দেয়ার মাধ্যমে কোম্পানীর কাছ থেকে দালালীর কমিশন (brokerage fee) নেয়ার অধিকারও আমার রয়েছে। কারণ উভয় ক্ষেত্রেই আমার প্রত্যক্ষ শ্রম জড়িয়ে আছে। ফলে, আমি আমার প্রত্যক্ষ শ্রমের প্রত্যক্ষ সুবিধা নিকটতম স্তর থেকে একবারই পাওয়ার অধিকার রাখি। কিন্তু, মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এ একটি নির্দিষ্ট পয়েন্ট ভ্যালুর পণ্য কিনে আমি দালালীর অধিকার অর্জন করি যা বাস্তবায়ন করতে আমাকে প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়ে নতুন ক্রেতা সংগ্রহ করতে হয়। অতএব, আমি ব্যক্তিগত ভাবে যত বেশী ক্রেতা সংগ্রহ করতে পারবো ঠিক ততজনের কমিশন লাভের বৈধ অধিকার রাখি; কিন্তু কোন ক্রমেই আমার প্রত্যক্ষ শ্রম স্বয়ংক্রিয় প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে সুদূরবহুদূর পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারেনা অথচ মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে তা ঘটে চলছে। অর্থাৎ, আমি যদি কাউকে নিয়োগ দেই তাহলে তার মাধ্যমে সৃষ্ট তার নিম্ন পর্যায়ের (তা হাজার মাইল লম্বা হলেও) সমস্ত নতুন চুক্তির প্রত্যেকটির সুবিধা আমি কমিশন আকারে পেতে থাকি। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে আমার ডাউনলাইন এতোদূর বিস্তৃত হয়ে পড়েছে যাদের পেছনেতথাকথিত তত্ত্বাবধানব্যতীত আমার কোন প্রত্যক্ষ শ্রম (direct labour) নেই; এমনকি তাদের সাথে আমার কোন পরিচয়ও নেই।

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর বৈধতার দাবীদাররা শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) কে হালাল করার জন্য এ যাবৎ যে সকল যুক্তি ব্যবহার করেছে, এ পর্যায়ে আমরা তার প্রত্যেকটি পর্যালোচনা সহকারে পাঠকদের সুস্থ বুদ্ধির সামনে তুলে ধরছি।

() সদকায়ে জারিয়াঃ

এই সিস্টেমের প্রবক্তারা শ্রমের বহুস্তর সুবিধার (multi level benefit of labour) মিল খুঁজে পায় সদকায়ে জারিয়ার [2] সাথে। তাদের যুক্তির সারকথা হচ্ছে “সদকায়ে জারিয়ায় ব্যক্তি যদি একবার প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়ে তার ফল দীর্ঘদিন পর্যন্ত পেতে পারে, তাহলে আমরাও মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে একবার প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়ে দীর্ঘদিন পর্যন্ত এর ফল ভোগ করার বৈধ অধিকারী”।

আপাত দৃষ্টিতে যুক্তিটি বেশ শক্তিশালী মনে হলেও একটু গভীর দৃষ্টি দিলে কয়েকটি দিক থেকে এর অসাড়তা ধরা পড়বে।

প্রথমতঃ সদকায়ে জারিয়া মূলত একটি নিরেট আধ্যাত্মিক বিষয় (purely spiritual in nature) যার সাথে অর্থ ও শ্রম নীতির (finance and labour policy) কোনও সম্পর্ক নেই। সদকায়ে জারিয়ায় দীর্ঘদিন পর্যন্ত যে প্রতিদান/বিনিময় পাওয়া যায় তা হচ্ছে কেবলই সওয়াব; যার কোন আর্থিক মূল্য (financial value) নেই। সদকায়ে জারিয়ার সাথে মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর তুলনা ঠিক তখনি সঠিক হতে পারে যখন সদকায়ে জারিয়ার বৈশিষ্টের দাবী অনুযায়ী মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়েও এ রকম ঘোষণা দেয়া হবে যে, “প্রতিটি ব্যক্তি প্রত্যক্ষ শ্রমের ভিত্তিতে সরাসরি কারো কাছে কোম্পানীর পণ্য বিক্রি করলে ঠিক ঐ ক্রেতার আর্থিককমিশন লাভের উপযুক্ত; বাদবাকী যে সকল লোক নতুন ক্রেতার প্রত্যক্ষ শ্রমে পণ্য কিনবে সেখান থেকে আপলাইনের ব্যক্তিবর্গ কিছু লোকের উপকার করার কারণে সদকায়ে জারিয়ার মতো বহুত ফায়দা, অশেষ নেকী কিংবা অগণিত আশির্বাদ (যার কোনটিরও আর্থিক মূল্য নাই) পেতে থাকবেন”। নিরেট সওয়াবের বিষয়কে আর্থিক মূল্যের সাথে মিশিয়ে ফেলা নীতিগত ভাবেই ভুল।

দ্বিতীয়ত, সদকায়ে জারিয়ার ক্ষেত্রে সওয়াবদাতা (আল্লাহ) তার নিজস্ব তহবিল থেকে কর্মসম্পাদন কারীকে দিয়ে থাকেন; তিনি কোন মানুষের তহবিল থেকে কেটে কেটে জমা করে দেননা। পক্ষান্তরে মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে কোম্পানী তার নিজস্ব তহবিল থেকে অথবা নিজের পিতৃ সম্পত্তি থেকে এই ধারাবাহিক কমিশন দেয়না; বরং প্রতিটি নতুন ক্রেতার কাছ থেকে আদায় করা বর্ধিত মূল্যের একটি অংশকে কেটে কেটে আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটরদেরকে প্রদান করে। সদকায়ে জারিয়ায় প্রতিদান প্রদানের জন্য অন্যের তহবিলে কাঁচি চালানোর প্রয়োজন পড়েনা; অথচ মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে এই বাড়তি কমিশন গুলো আদায় করা হয় প্রতিটি নতুন ক্রেতার তহবিলে কাঁচি চালানোর মাধ্যমেই। প্রকৃতিগতভাবে এ দু’য়ের মধ্যে এতো বিরাট পার্থক্য থাকার ফলে একটিকে অপরটির সাথে তুলনা দেয়ার অবকাশই থাকেনা।

() পুত্রের আয়ে পিতার অধিকারঃ

 

তাদের দ্বিতীয় যুক্তিটি হচ্ছে, “পিতা যেভাবে পুত্রের পেছনে কয়েক বছর টাকা বিনিয়োগ ও তত্ত্বাবধানের মাধ্যমে পুত্রের আয়ে স্থায়ী অংশীদার হতে পারে ঠিক সেভাবেই মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে আপলাইন ‘তত্ত্বাবধানের’ দায়িত্ব নিয়ে ডাউনলাইনের আয়ে বৈধ ভাবেই স্থায়ী অংশীদার হতে পারে।”

এ যুক্তিটিও কয়েকটি কারণে সঠিক নয়।

প্রথমতঃ পুত্রের আয়ে পিতার আধিকারটি মূলত কোন রকম তত্ত্বাবধান ও অর্থ বিনিয়োগের সাথে শর্তযুক্ত নয়। পিতা অর্থ বিনিয়োগ না করেও পুত্রের আয়ে অংশীদার। এমনটি হয়েছে মুলত শরীয়ত প্রণেতার পক্ষ থেকে একটি বিশেষ আইনের কারণে (যেখানে পুত্রের আয়ে পিতার অধিকারের কথা বলা হয়েছে)। নতুবা বিষয়টি যদি তত্ত্বাবধান ও  বিনিয়োগের সাথে সম্পৃক্ত হতো তাহলে মেয়ের আয়েও পিতার অধিকার স্বীকার করা হতো (কারণ, মেয়ের পেছনেও পিতার তত্ত্বাবধান ও অর্থ বিনিয়োগ রয়েছে)। অথচ এটা অত্যন্ত সুবিদিত যে, মেয়ে শত কোটি টাকা আয় করলেও মেয়ের জীবদ্দশায় সে সম্পদে পিতার কোন বৈধ অধিকার নেই।

দ্বিতীয়তঃ পুত্রের আয়ে পিতার আয়ের কোন মাল্টিলেভেল ইফেক্ট নেই। অর্থ্যাৎ, পিতা কেবল তার পুত্রের আয়ে অংশীদার; পুত্র কোনো লোককে কাজে নিয়োগ করলে সেখান থেকে কোনো সুবিধা দাবি করার অধিকার পিতার নেই। তাছাড়া পিতা একই সময়ে একাধিক লেভেল (যেমন পুত্র, পৌত্র ও প্রপৌত্র — ) থেকে আর্থিক সুবিধা দাবী করতে পারেনা (যেমনটা দাবী করা হয় মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে) ।

অতএব এটা সুস্পষ্ট যে, পুত্রের আয়ে পিতার বৈধ অধিকারের মধ্যে মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর শ্রমের বহুস্তর সুবিধার (multi level benefit of labour) বৈধতার প্রমাণ তো দূরের কথা; কোন ইংগিতও নেই।

() অনাথ শিশুকে শিক্ষিত কর্মক্ষম করে তোলাঃ

 

কখনো কখনো তাদেরকে এ যুক্তির অবতারণা করতে দেখা যায় যে, “ধরুন, একটা অনাথ শিশু আপনার নজরে পড়ল যার কোন আইনগত দায় দায়িত্ব আপনার উপর নেই। একান্ত দয়া পরবশ হয়ে আপনি তাকে অনেক টাকা পয়সা ও শ্রম দিয়ে তাকে শিক্ষিত ও কর্মক্ষম করে তুললেন। এবার বলুন, সে যদি কোন ইনকাম করে তাহলে কি সে ইনকামে আপনার কোন বৈধ অংশ নেই ? আলবৎ আছে। অনুরূপভাবে মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের একজন প্রতিনিধি হিসেবে আপনি যখন প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়ে এবং এ ব্যবসার মাহাত্ম বুঝিয়ে কোন নতুন ব্যক্তিকে এর অন্তর্ভুক্ত করেন অমনিই তার ভবিষ্যৎ ডাউনলাইনের চুক্তিসমুহের মধ্যেও আপনার একটি বৈধ অংশ সৃষ্টি হয়ে যায়।”

সন্দেহ নেই, এই যুক্তি আবিষ্কারের পেছনে যথেষ্ট বুদ্ধিমত্তা খরচ হয়েছে। বুদ্ধির প্রশংসা না করে উপায় নেই। কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে আগের দু’টি যুক্তির ন্যায় এই যুক্তিটিও শ্রমের বহুস্তর সুবিধার (multi level benefit of labour) বৈধতা প্রমাণে সক্ষম নয়। কারণ-

অনাথ শিশুকে কর্মক্ষম করে তোলার মাধ্যমে আপনি দু’টি জিনিস অর্জন করেছেন। একটি হচ্ছে সওয়াব (যার কোন financial value নেই, অতএব তা আমাদের আলোচ্য বিষয় নয়) এবং অপরটি হ্ল ‘আর্থিক অধিকার / financial right’ (যেহেতু তার পেছনে আপনি নিজের অর্থ ব্যয় করেছেন)। কিন্তু মনে রাখতে হবে, আপনার আর্থিক অধিকারটি বাস্তব খরচের পরিমাণ পর্যন্তই সীমাবদ্ধ। অর্থ্যাৎ, বাস্তবে তার জন্য যত টাকা খরচ করেছেন ঠিক ততটাকাই আপনি ফেরৎ পাওয়ার (reimbursement) অধিকারী; তার বেশী নয়। এক কথায়, তার ইনকামে আপনার কোন অনির্দিষ্ট, অসীম স্থিতিস্থাপক (indefinite, unlimited and elastic) অধিকার নেই; বরং রয়েছে একটি সুনির্দিষ্ট সীমাবদ্ধ (definite and limited) অধিকার, যার বাড়তি একটি টাকাও আপনার জন্য বৈধ নয়।

 

তাছাড়া অনাথের ক্ষেত্রেও আপনার শ্রমের কোন বহুস্তর সুবিধা (multilevel effect) নেই।  অর্থ্যাৎ, কেবল ঐ অনাথ শিশুর কাছেই আপনার অধিকার রয়েছে; সে যদি অন্য কারো সাথে চুক্তি করে তাহলে সেই স্তর থেকে উদ্ভূত আয়ে আপনার কোন অধিকার নেই।

মোদ্দাকথা, এই উদাহরণের মাধ্যমেও শ্রমের বহুস্তর সুবিধার (multi level benefit of labour) বৈধতা প্রমাণ সম্ভব নয়।

 () বাড়ী ভাড়া প্রসঙ্গ

তাদের চতুর্থ যুক্তিটি হচ্ছে, “আমি যদি একবার শ্রম দিয়ে একটি বাড়ীর মালিক হই তাহলে সারাজীবন বসে বসে ঐ বাড়ীর ভাড়া ভোগ করি। কই, তখন তো কেউ এর বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে না ? পক্ষান্তরে  আমি যদি মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে একবার শ্রম দিয়ে একটি ডাউনলাইন তৈরী করে তাদের চুক্তি থেকে উদ্ভূত ইনকামে বসে থেকে ভাগ বসাই তাহলে এর বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে কেন ? বাড়ী ভাড়া ক্রমাগত পেতে থাকা বৈধ হলে ডাউনলাইনের ইনকামেও ক্রমাগত ভাগ বসানো বৈধ। কারণ, নীতি সব জায়গায় একরকমই হওয়া উচিত।”

বস্তুনিষ্ঠভাবে পর্যালোচনা করা হলে এ যুক্তিটিও ধোপে টিকবেনা। কারণ, বাড়ী ভাড়ার ক্ষেত্রে বাড়ী একটি ভৌতিক বস্তু (physical object) যা ব্যাবহার করা ও ভাড়া দেওয়ার যোগ্য। সাধারনত একটি বাড়ীর পেছনে দু’ ধরনের বিনিয়োগ কার্যকর থাকে। একটি হল ‘অর্থ’ (যা বাড়ীর মালিক যোগান দিয়ে থাকে) এবং অপরটি হল ‘শ্রম’ (যা সরবরাহ করে শ্রমিক পক্ষ)। মালিকের অর্থ ও শ্রমিকের শ্রম – এ দু’য়ের যৌথ ফলাফল হচ্ছে একটি বাড়ী। সূক্ষ্ণ দৃষ্টি প্রয়োগ করুন, যদি শ্রমের বহু স্তর সুবিধা (multilevel benefit of labour) বৈধ হতো, (মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের প্রবক্তরা যাকে বৈধ ভাবছেন) তাহলে ঐ বাড়ীর উপর মালিকের ন্যায় শ্রমিক পক্ষেরও একটি স্থায়ী অধিকার অর্জিত হতো। অর্থ্যাৎ, যতদিন বাড়ী থেকে আয় হতে থাকবে ততদিন সেই আয়ের উপর মালিক ও শ্রমিক দু’ পক্ষই ভাগ বসাতো। কারণ, শ্রমিক পক্ষের শ্রমের ফলেই বাড়ীটি অস্তিত্ত্বে এসেছে। কিন্তু বাস্তবে কি শ্রমিক পক্ষ বাড়ীর আয়ে স্থায়ী অংশীদার হতে পারে ? মোটেই না। এর কারণ কী ? এর কারণ হল, সর্বাগ্রে দেখতে হবে মানুষ অর্থ বা শ্রম দিয়ে যা উপার্জন করছে তার বৈশিষ্ট্য কী ? তা কী ভাড়া [3] দেওয়ার যোগ্য ? যদি ভাড়া দেয়ার যোগ্য হয় তাহলে বাড়তি পরিশ্রম না করেও স্রেফ বস্তুটি ভাড়া দিয়ে বসে বসে উপকার লাভ করা যেতে পারে। এখানে মালিক পক্ষ অর্থ বিনিয়োগের মাধ্যমে একটি বাড়ী অর্জন করেছে (যা ভাড়া দেয়ার যোগ্য)। পক্ষান্তরে শ্রমিক পক্ষ শ্রমের মাধ্যমে অর্জন করেছে কিছু টাকা (যা ভাড়া দেয়ার অযোগ্য)। দু’ পক্ষই দু’টি স্বতন্ত্র গুণ সম্পন্ন জিনিস অর্জন করেছে। প্রত্যেক পক্ষই নিজের ইনকামের নিরংকুশ মালিক; এক পক্ষের ইনকামে (কিংবা তা থেকে ভবিষ্যতে উদ্ভূত কোন আয়ে) অপর পক্ষের কোন রকম লেজ লাগানো নেই। এখান থেকেও একই কথা প্রমাণিত হচ্ছে, প্রত্যেক ব্যক্তি তার শ্রমের একস্তর সুবিধা (uni-level benefit) নিকটতম স্তর (nearest level) থেকেই পেয়ে থাকে; বহুস্তর (multi-level) থেকে নয়।

এ বিষয়টি মাথায় রেখে এবার  মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের প্রতিদান স্কীম (remuneration scheme) টি পর্যালোচনা করা যাক। এ সিস্টেমের সর্বোচ্চ চূড়ায় রয়েছে কিছু রাঘব বোয়াল যারা প্রথম দিককার সদস্য। এরপর থেকে যারাই এর সাথে যুক্ত হতে চেয়েছে তাদের প্রত্যেককে বিদ্যমান রাঘব বোয়ালদের রেফারেন্স [4] সাপেক্ষেই পণ্য কিনতে (বা দালালির অধিকার নিতে) বাধ্য করা হয়েছে। অর্থ্যাৎ, উচ্চতর দালালের অধীনস্ততা না মেনে সরাসরি কোম্পানির  দালাল হওয়ার রাস্তা খোলা রাখা হয়নি। কারণ,তখন উচ্চতর রাঘব বোয়ালদের বসে বসে কিংবা তথাকথিত ‘তত্ত্বাবধানের’ নামে কোটি কোটি টাকা কামানোর রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া, তখন তাদেরকেও সবসময় সরাসরি পণ্য বিক্রয়ের (direct selling of goods) কঠোর শ্রম দিতে হয়। নামকাওয়াস্তে তত্ত্বাবধাননামক শ্রমের মাধ্যমে (তাও আবার অনেক ক্ষেত্রে কাল্পনিক/imaginary) কোটি কোটি টাকা কামানোর সুযোগ থাকলে সরাসরি পণ্য বিক্রয়ের (direct selling of goods) কঠোর শ্রম দিয়ে মাসে মাত্র কয়েক হাজার টাকা ইনকাম করতে যায় কোন বোকা! কারণ, ডাউনলাইন নিজের অর্থগৃধ্নু মানসিকতায় যথাযথ সচেতন হলে তাদের শ্রমেই দালালচক্রের সংখ্যা বাড়তে থাকে যার কমিশন অনায়াসে আপলাইনের উস্তাদদের কাছে পৌঁছে যায়। এখানে একটি সরল প্রশ্ন হচ্ছে, ইসলাম শ্রম পারিশ্রমিকের মধ্যে যে সুমহান ভারসাম্যপূর্ণ নীতি নির্ধারণ করেছে তার অধীনে রকম মতলববাজীর স্থান থাকতে পারে কি ?

সারকথা, বাড়ী ভাড়ার আয়ে কোন রকম বহু স্তর সুবিধা (multi level benefit) নেই, যার সাথে তুলনা করে মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের বৈধতা বিবেচনা করা যেতে পারে।

 

 

 () অলস বসে থেকে মুনাফা লাভের দৃষ্টান্ত থেকে প্রমাণ সংগ্রহঃ

তাদের কেউ কেউ আবার বলে উঠছেন যে, “অলস বসে থেকে মুনাফা লাভের দৃষ্টান্ত তো খোদ ট্রাডিশনাল মার্কেটিংয়েও রয়েছে। যেমন একজন বস্ত্র ব্যবসায়ী কয়েক বছর কঠোর শ্রম দিয়ে একটি বিশাল দোকান দিয়ে বসে। কাজ কারবার মূলত সবই করছে কর্মচারীরা; মালিক শুধু আলীশান গদিতে বসে টাকা গুনে গুনে কেবল পকেটে ঢুকাচ্ছে। এটা যদি বৈধ হয়, তাহলে মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে কয়েক বছর কঠোর শ্রম দিয়ে একটি দালাল চক্র সৃষ্টি করে ডাউনলাইনের কমিশনে বসে থেকে ভাগ বসালে অবৈধ হবে কেন ?”

এ উদাহরণে সর্বাধিক লক্ষণীয় বিষয়গুলো হচ্ছে, কিছু লোককে কর্মচারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া, তাদের বেতন-ভাতাদি ও আইনগত দায়-দায়িত্বের একটি বোঝা মালিকের স্কন্ধে থাকা। এটা মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের আপলাইন ও ডাউনলাইনের কারবার নয়, যেখানে ডাউনলাইনের পাতি দালালদের ইনকামে আপলাইনের রাঘব বোয়ালদের অধিকার তো ঠিক ই আছে কিন্তু বেতন-ভাতা ও আইনগত দায়-দায়িত্বের কোন কিছুই তাদের ঘাড়ে নেই। অধিকার ও দায়-দায়িত্বের ক্ষেত্রে দু’টি ব্যবস্থার মধ্যে মৌলিক পার্থক্যের ফলে একটিকে অপরটির সাথে তুলনা করা ই সঠিক নয়।

এখানেও যে কথাটি অত্যন্ত জোরের সাথে উল্লেখ্য তা হলো, উক্ত উদাহরণেও (এমনকি মালিক কর্তৃক কোন রকম বেতন-ভাতা দেয়া না হলেও) শ্রমের বহু স্তর সুবিধা (multilevel benefit of labour) খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। অর্থ্যাৎ, বস্ত্র ব্যবসায়ী তার নিযুক্ত কর্মচারীর মাধ্যমে বিক্রীত পণ্যের লাভ একবারই পাচ্ছে। উক্ত কর্মচারী থেকে কোন ক্রেতা কোন পণ্য কিনে অন্য কোথাও বিক্রি করলে সেখানকার মুনাফায় উক্ত বস্ত্র ব্যবসায়ীর কোন কমিশন থাকছে না; তার পরবর্তী পর্যায়ের বিক্রয়সমুহের ক্ষেত্রে তো কমিশনের প্রশ্ন ই আসে না।

() সম্মতির বাহানাঃ

একটা পর্যায়ে তারা বলে উঠেন যে, “আমরা তো আর কাউকে জোর করে এই ব্যবসায় আনছি না। প্রাপ্ত বয়স্ক লোকেরা স্বেচ্ছায় আমাদের সাথে চুক্তি করছে। পারস্পরিক সম্মতি থাকার কারণে আমাদের এই কারবার জায়েজ। কারণ, আল্লাহ বলেন-

يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل الا ان تكون تجارة عن تراض منكم (النساء 29)

অর্থ্যাৎ, “হে ঈমানদাররা! তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না। তবে তোমাদের পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে খেতে পারো।” [5]

প্রথম কথাটি হচ্ছে, আয়াতের প্রথমাংশে “অন্যায়ভাবে” অন্যের সম্পদ খাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে; অতঃপর আলোচিত হয়েছে পারস্পরিক সম্মতিক্রমে ব্যবসার বিষয়টি। এর মাধ্যমে বুঝা গেল,  কোন একটি বিষয় কুরআন ও হাদীস দ্বারা অবৈধ প্রমাণিত হলে পারস্পরিক সম্মতি তাকে বৈধ করতে পারেনা। এ ক্ষেত্রে আল্লামা আসাদ কর্তৃক উক্ত আয়াতের অনুবাদটি খেয়াল করুন-

O YOU who have attained to faith! Do not devour one another’s possessions wrongfully – not even by way of trade based on mutual agreement. [6]

অর্থ্যাৎ, “হে ঈমানদাররা! তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না- এমনকিপারস্পরিকসম্মতিক্রমেব্যবসারনামদিয়েওনয়।”

তাছাড়া একটি দারিদ্র পীড়িত দেশে মানুষের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে একতরফা যে কোন শর্ত দিলেও বেকার যুবকরা সম্মতি দিতে কুন্ঠা বোধ করে না। এরকম পরিস্থিতিতে প্রদত্ত সম্মতি ‘স্বাধীন সম্মতি’ (free consent) হিসেবে বিবেচিত হবে কিনা- তা নীচে উল্লেখিত মুফাসসিরদের বক্তব্য থেকে কিছুটা আঁচ করা যেতে পারে।

সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদুদী (রহঃ) লিখেন-

باطل طريقوں سے مراد وه تمام طريقے ہيں جو خلاف حق هوں اور شرعا و اخلاقا ناجائز هوں

অন্যায়ভাবে বলতে এখানে এমন সব পদ্ধতির কথা বুঝানো হয়েছে যা সত্য ও ন্যায়নীতি বিরোধী এবং নৈতিক দিক দিয়েও শরীয়তের দৃষ্টিতে নাজায়েয।…… প্রতারণা ও জালিয়াতির কারবারেও বাহ্যত সম্মতিই দেখা যায়। কিন্তু এখানে সম্মতির পেছনে এই ভুল ধারণা কাজ করে যে, এর মধ্যে প্রতারণা ও জালিয়াতি নেই। [7]

 

আল্লামা আসাদ বলেন-

The believers are prohibited from devouring another person’s possessions wrongfully even if that other person- being the weaker party – agrees to such a deprivation or exploitation under the stress of circumstances.  [8]

 

অর্থ্যাৎ, “ঈমানদারদেরকে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেতে নিষেধ করা হয়েছে; এমনকি অপর পক্ষ (দুর্বল হওয়ার কারণে) পরিস্থিতির চাপে এই বঞ্চনা ও শোষণমূলক চুক্তিতে সম্মতি দিলেও।”

 

 

পদ্ধতিগতদিক (Procedural Aspects)

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের তাত্ত্বিক ভিত্তি (Theoretical Basis) ও ইসলামের প্রতিষ্ঠিত  অর্থ ও শ্রমনীতির সাথে তার সংঘর্ষের বিষয়টি দীর্ঘ পরিসরে আলোচনা করার পর এ পর্যায়ে আমরা কিছু পদ্ধতিগত সংঘাত নিয়ে আলোচনা করবো।

বর্ধিতমুল্যেবিক্রয়

 

ট্রাডিশনাল মার্কেটিংয়ে একটি পণ্য উৎপাদক থেকে ভোক্তার হাতে পৌঁছা পর্যন্ত হাতেগোনা কয়েকটি মধ্যস্বত্বভোগী থাকে। [যেমন, Producer → agent → whole seller → retailer → consumer/ উৎপাদক → এজেন্ট → পাইকার → খুচরা বিক্রেতা → ভোক্তা ] । কিন্তু, মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের বাহারী প্রচারণার সময় গুটিকতেক মধ্যস্বত্ত্বভোগী বিলোপ করার শ্লোগান দিয়ে তারা নিজেরাই ল্টো ডাউনলাইন আপলাইন নাম দিয়ে শত সহস্র মধ্যস্বত্ত্বভোগী সৃষ্টি করে চলেছে। এই বিপুল সংখ্যক দালাল গোষ্ঠীকে কমিশনের বখরা দিতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই কোম্পানীকে বর্ধিত মূল্যে পণ্য বিক্রি করতে হয়। কিন্তু প্রচলিত পণ্যদ্রব্যের (যেমন চাল, ডাল, তেল, সাবান সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসমূহ) দাম পাবলিকের জানা থাকায় কোম্পানী যদি এসব পণ্য বর্ধিত মূল্যে বিক্রি করে তাহলে পাবলিককে সহজে জালে আটকানো সম্ভব নয়। আবার প্রচলিত বাজারমূল্যে বিক্রি করলে বিপুল সংখ্যক দালাল গোষ্ঠীর মুনাফার পরিমাণ মারাত্মিক ভাবে কমে যায়। ফলে তারা এক অভিনব ফন্দি আঁটে। আরতাহলোএমনসবপণ্যেরপ্যাকেজতৈরীকরাযেগুলোরদামসম্পর্কেসাধারণনগনেরসঠিককোনধারণানেই।এইপ্রক্রিয়ায়সুলভমূল্যেপণ্যবিক্রিরবাহারীপ্রচারণা  বাস্তবে (জনগণেরঅজ্ঞতাকেপুঁজিকরে) মূল্যবহুগুণবাড়িয়েবিক্রিউভয়কূলইরক্ষাকরাযায়।

ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টলেভেল মার্কেটিং শীর্ষক সেমিনারের উপাখ্যানঃ

বাংলাদেশে প্রচলিত মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের একটি কোম্পানী কর্তৃক নাইজেলা নামক তেল বিক্রির ঘটনা এখানে উল্লেখযোগ্য। গত কয়েক মাস আগে (১১ই জুলাই ‘২০০৯) এদেশের শীর্ষস্থানীয় একটি এমএলএম কোম্পানী ঢাকা বিজ্ঞান কলেজে  ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টি লেভেল মার্কেটিংশীর্ষক একটি সেমিনারের আয়োজন করে। আমি সে সেমিনারে অংশগ্রহণ করেছিলাম। সেমিনারের একটি বিশাল সময় জুড়ে ওলামায়ে কেরামের কূপমন্ডুকতা তুলে ধরে খানিকটা হাস্যরস সৃষ্টির প্রচেষ্টা চলে। পরে মঞ্চে হাজির হন ঐ কোম্পানীর শরীয়াহ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুস সোবহান।  প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রশ্ন উঠে “নাইজেলা” প্যাকেজের দাম নিয়ে। প্রথমদিকে অস্বীকার করার চেষ্টা চললেও  পরে অবশ্য স্বীকার করা হয় যে নাইজেলা তেলের এই প্যাকেজটি অনেক চড়া মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। (উল্লেখ্য, মাত্র ৬০০০ টাকার এই প্যাকেজেই কোম্পানী ২৭৭৫ টাকা লাভ করে বলে স্বীকার করা হয়)। দারিদ্র পীড়িত একটি দেশে এতো চড়া মূল্যে পণ্য বিক্রি ইসলামে জায়েজ কিনা – এমন প্রশ্নের জবাবে মাওলানা সাহেব বলেন, “জায়েজ, একশ বার জায়েজ”। কিসের ভিত্তিতে জায়েজ – জানতে চাওয়া হলে তিনি দলিল হিসেবে হযরত আলী (রাঃ) এর একটি ঘটনা উল্লেখ করেন। ঘটনাটি হলো, আলী (রাঃ) একদিন বাজারে গিয়ে ৬০ দিরহাম দিয়ে একটি ঘোড়া কিনে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে একজন জিজ্ঞাসা করলেন –

পথিক :     ঘোড়া কত দিয়ে কিনলেন ?

আলী (রাঃ) :             ৬০ দিরহাম দিয়ে।

পথিক :     ঘোড়াটি বিক্রি  করবেন ?

আলী (রাঃ) :             করবো ।

পথিক :     দাম কত ?

আলী (রাঃ) :             আমি কিছু বলবো না। আপনার যা খুশি দিয়েন ।

পথিক :     আমি আপনাকে ১২০ দিরহাম দিবো।

আলী (রাঃ) :             ঠিক আছে ।

এরপর মাওলানা সাহেব আমাদেরকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “দেখছেন, মাত্র কিছুক্ষণের মধ্যে আলী (রাঃ) ৬০ দিরহামে কিনে ১২০ দিরহামে বিক্রি করলেন। অতএব অতিরিক্ত মূল্য ইসলামে জায়েজ।” আমার পিছনের এক লোক বক্র হাসি দিয়ে বলল, “বাহ ! মাওলানা সাহেবের যুক্তির কী বহর ! এখান থেকে অতিরিক্ত মূল্য ধার্যকরার  বৈধতা তো প্রমাণিত হয়ই না; উলটো বরং এই ঘটনার মাধ্যমে প্রমাণিত হলো, বিক্রেতা তার পণ্য দ্রব্যের দামই চাইতে পারে না, ক্রেতা খুশী হয়ে যা দিবে তাতেই তার খুশী থাকা উচিত”।

এ পর্যায়ে আমরা পণ্যের অতিরিক্ত মূল্য হাঁকানো সংক্রান্ত ইসলামী বিধান আলোচনার চেষ্টা করবো। ব্যবসা বানিজ্যের রীতি-নীতি আলচনার এক পর্যায়ে রাসূল (সাঃ) বলেন,

ان التجار يبعثون يوم القيامة فجارا الا من اتقى الله و بر و صدق (الترمذى 1210)

অর্থ্যাৎ, “ব্যবসায়ীদেরকে কিয়ামতের দিন চরম পাপীষ্ঠ হিসেবে উঠানো হবে, তবে ঐ সকল ব্যবসায়ী বাদে যারা আল্লাহকে ভয় করে, সদাচরণ করে এবং সত্য কথা বলে।” (তিরমিযি, হাদীস নং ১২১০)

আল্লাহকে ভয় করার মানে হচ্ছে আল্লাহর দেয়া নির্দেশ সমুহ মেনে চলা। ব্যবসা বানিজ্যের ক্ষেত্রে আল্লাহর একটি স্থায়ী নির্দেশনা হল- “অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে না খাওয়া”। আল্লাহ বলেন,

يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل (النساء 29)

অর্থ্যাৎ, “হে ঈমানদাররা! তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না” (নিসা, ২৯)

অন্যায়ভাবে” বলতে মূলত এমন সব কারবার কে বুঝানো হয়েছে যা আল্লাহ ও তার রাসূল (সাঃ) নিষিদ্ধ করেছেন। সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদুদী (রহঃ) লিখেন-

باطل طريقوں سے مراد وه تمام طريقے ہيں جو خلاف حق هوں اور شرعا و اخلاقا ناجائز هوں

অন্যায়ভাবে বলতে এখানে এমন সব পদ্ধতির কথা বুঝানো হয়েছে যা সত্য ও ন্যায়নীতি বিরোধী এবং নৈতিক দিক দিয়েও শরীয়তের দৃষ্টিতে নাজায়েয।

(তাফহীমুল কুরআন, সূরা নিসা, টীকা ৫০)

মধ্যস্বত্বভোগীদের ব্যাপারে ইসলামের অবস্থানঃ

স্থানাভাব বশত আমরা ইসলাম কর্তৃক নিষিদ্ধ সব রকম ব্যবসা পদ্ধতি নিয়ে এখানে আলোচনা করছিনা। শুধু কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করছি যার দ্বারা বুঝা যাবে, রাসূল (সাঃ) আমাদের অর্থনৈতিক জীবনকে যেভাবে ঢেলে সাজাতে চান তার চৌহদ্দির মধ্যে মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের কারবার চলতে পারে কি না।

দ্রব্যমূল্য একটি স্পর্শকাতর ইস্যু। দ্রব্যমূল্য বাড়তে থাকলে স্বল্প আয়ের মানুষের ভোগান্তির অন্ত থাকে না। রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দ্রব্যমূল্য ফিক্সড না করে রাসূল (সাঃ) এমন সব কার্যকারণের (factors) উপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন যেগুলোর প্রভাবে দ্রব্যমূল্য অস্বাভাবিক বেড়ে যায়। তন্মধ্যে একটি হল বর্ধিত মূল্যে বিক্রির উদ্দেশ্যে পণ্যদ্রব্য আটকে রাখা। এ রকম মজুদদারীর উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে  রাসূল (সাঃ) বলেন-

المحتكر ملعون (ابن ماجة , التجارة , ح 2153)

অর্থ্যাৎ, “অভিশপ্ত সেই ব্যক্তি যে বর্ধিত মূল্যে বিক্রির উদ্দেশ্যে পণ্য দ্রব্য আটকে রাখে।” (ইবনে মাজাহ, ব্যবসায় অধ্যায়)

দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ার আরেকটি বিশেষ কারণ হচ্ছে উৎপাদক ভোক্তার মাঝখানে অতিরিক্ত মধ্যস্বত্ত্বভোগী সৃষ্টি হওয়া। যাদের কাজ হলো অল্প শ্রমে বেশী মুনাফা অর্জন করা। উদ্দেশ্যে তারা উৎপাদক ভোক্তার মাঝখানে অনর্থক বাধা হয়ে দাঁড়ায়। কারণ উৎপাদক কে সরাসরি ভোক্তার কাছে পৌছার সুযোগ দিলে স্বাভাবিক মূল্যেই পণ্য বিক্রি হয়ে যায়। তাই তারা ভোক্তার কাছে পৌছার আগেই উৎপাদক/ বিক্রেতার কাছ থেকে পণ্য কিনে পুনরায় ভোক্তার কাছে অধিক মুনাফা সহকারে বিক্রি করে। ভোক্তা উৎপাদকের মধ্যখানে যত বেশী মধ্যস্বত্ত্বভোগী থাকবে, ভোক্তার কাছে পৌঁছতে পৌঁছতে দ্রব্যমূল্য ক্রমশ ততই বাড়তে থাকবে। এই মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের চক্র ভেঙ্গে দিয়ে জনগণকে অতিরিক্ত দ্রব্যমূল্য থেকে  মুক্তি দেওয়ার উদ্দেশ্যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘোষণা করেন যে, “শহরে বসবাসকারী কোন ব্যক্তি শহরের বাইরে থেকে আগত কোন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পণ্য কিনে পুনরায় তা শহরের বাসিন্দাদের কাছে বিক্রি করতে পারবেনা। (نهي رسول الله صلي الله عليه وسلم ان يبيع حاضر لباد سنن ابى داود ح 3439 , سنن الترمذى ح 1222 , سنن ابن ماجة ح 2177)

এ নিষেধাজ্ঞা জারী হওয়ার ফলে শহরের ভিতরে বসবাসরত মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের হালকা পরিশ্রমে অধিক মুনাফা লাভের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেল। ফলে তাদের একটি গ্রুপ ভিন্ন ফন্দি আঁটলো। তারা শহর থেকে একটু বের হয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতো। শহরমুখী ব্যবসায়ীর দল দেখতে পেলে আগ বাড়িয়ে তাদের কাছ থেকে পণ্য কিনে শহরের বাসিন্দাদের কাছে পুনরায় বিক্রি করতো। অর্থাৎ তারা আগের তুলনায় খানিকটা বেশী শ্রম দিয়ে একটু ভিন্ন আঙ্গিকে তাদের মধ্যস্বত্ত্বভোগের কারবার চালিয়ে যাচ্ছিল। এ কথা জানতে পেরে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

نهي رسول الله صلي الله عليه وسلم عن تلقي الجلب والركبان (صحيح مسلم ح 1519 , سنن الترمذى ح 1221 )

অর্থাৎ “রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শহরবাসীকে শহরমুখী ব্যবসায়ীদের সাথে সাক্ষাৎ করে পণ্য কিনে পুনরায় শহরে বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন”।

এ দীর্ঘ আলোচনায় এ বিষয়টি অত্যন্ত পরিষ্কার যে, ইসলাম দ্রব্যমূল্যের বিষয়টি অত্যন্ত সিরিয়াসলি নিয়ে থাকে। কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে যারা জনগণকে বর্ধিত মূল্যে পণ্য কিনতে বাধ্য করে  ইসলাম তাদেরকে অভিশপ্ত ঘোষণা করে। বৃহৎ অর্থনীতির অনিবার্য ক্ষেত্র সমূহে কিছু নিয়ন্ত্রিত মধ্যস্বত্ত্বভোগীর অনুমতি দিলেও ইসলাম ভোক্তা উৎপাদকের মাঝখানে অযথামধ্যস্বত্ত্বভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর ঘোর বিরোধী।

 

কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের মধ্যস্বত্ত্বভোগী দালালদের বিরাটসংখ্যাটি বিবেচনা করুন। আপনি তাদের কাছ থেকে এই মুহুর্তে একটি পণ্য কিনতে চাইলে আপনার আপলাইনের কয়েক হাজার অনর্থক দালালের জন্য বরাদ্দকৃত কমিশনের অর্থ পরিশোধ করেই আপনাকে কিনতে হবে। অথচ কোম্পানীর পণ্য আপনার কাছে পরিচিত করার জন্য আপনার উর্ধ্বতন একজন দালালই যথেষ্ট ছিল। আর তখন অসংখ্য দালালের কমিশনের বোঝা না থাকার ফলে প্রচলিত মূল্যের চেয়ে অনেক কম মূল্যে আপনাকে পণ্যটি দেয়া যেতো। অবৈধ মুনাফাখোরীর বাজার গরম করার জন্য কয়েক হাজার অনর্থক দালালমধ্যস্বত্ত্বভোগীর কমিশনের টাকা দিতে বাধ্য করা হচ্ছে নতুন প্রত্যেকটি ক্রেতাকে। গ্রাম পর্যায়ে সরেজমিনে তদন্ত করে দেখা গেছে  তাদের অধিকাংশ ক্রেতাই তাদের উর্ধ্বতন অগণিত মধ্যস্বত্ত্বভোগী দালালের কমিশনের কথা কিছুই জানে না। সেক্ষেত্রে তো তা সুস্পষ্ট প্রতারণার শামিল। আর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, من غش فليس منا  “যে প্রতারণা করে সে আমার দলভুক্ত না” (মুসলিম ও তিরমিযি)

আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, বর্ধিত মূল্যে বিক্রির উদ্দেশ্যে তারা এমন সব পণ্য হাজির করে যার স্বাভাবিক দাম সম্পর্কে সাধারণ মানুষ কিছুই জানে না। অনেক সময় আন্দাজও করতে পারে না। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ক্ষেত্রে এমন বর্ধিত মূল্যে বিক্রি সম্ভব নয়। কারণ সেগুলোর দাম সম্পর্কে মোটামুটি সবাই সচেতন। প্রকারের কারবারের সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, পণ্যেরমূল্যসম্পর্কেযথাযথজ্ঞাননেইএমনলোকেরকাছেউচ্চমূল্যেপণ্যবিক্রিকরানিঃসন্দেহেএকপ্রকারজুলম

(ইবনে রুশদ, আল কাওয়ায়েদ, পৃষ্ঠা ৬০১)

আর ইবনে জারীর  তাবারী সূরা নিসা’র ২৯ নং আয়াতে “অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ খাওয়া” –‘র ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন-

يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل اى نهى عن اكلهم اموالهم بالباطل اى بالربا و القمار و البخس و الظلم (جامع البيان المعروف ب تفسير الطبرى ج 4, ص 42 )

“হে ঈমানদাররা! তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না” অর্থ্যাৎ, আল্লাহ এ আয়াতের মাধ্যমে একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে খাওয়াকে নিষিদ্ধ করেছেন। আর “অন্যায় ভাবে”-‘র মানে হলো- সুদ, জুয়া, অতি কম মূল্যে ক্রয় করা ও অতি বেশি মূল্যে বিক্রি করা।

(জামিউল বায়ান, ৪র্থ খণ্ড, পৃষ্ঠা ৪২)

বিশেষজ্ঞদেরমতামত

 

শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) এক প্রকার জুয়াবাজী। আল্লাহ বলেন,

يا ايها الذين امنوا انما الخمر و الميسر ………. رجس من عمل الشيطان فاجتنبوه لعلكم تفلحون (المائدة 90)

অর্থ্যাৎ, হে ঈমানদাররা! নিঃসন্দেহে মদ, জুয়া …………… নাপাক ও শয়তানী কাজ। অতএব, এগুলো পরিত্যাগ কর; তবেই তোমরা সফল হতে পারবে। (মায়িদাহ ৯০)

ইসলামে যে সকল  কারণে জুয়াবাজী ও লটারী নিষিদ্ধ, তার অন্যতম হচ্ছে অল্প কিছু টাকা ও শ্রম বিনিয়োগ করে অসংখ্য লোকের জমা দেওয়া বিশাল অংকের  টাকা লাভ করা। এ পদ্ধতিতে শ্রমের সাথে ফলের  কোন রকমের সামঞ্জস্যতা নেই (যেমন, ১০ টাকার টিকিটে ৪০ লক্ষ টাকা জেতা)।  তাছাড়া, এর ফলে লক্ষ লক্ষ লোকের অন্তরে (যারা লটারী জিততে পারেনি) ব্যাপক হতাশার সৃষ্টি হয়। এ সকল কারণে ইসলাম এ সিস্টেমকে অন্যের সম্পদ অন্যায় ভাবে খাওয়ার শামিল করে।

আপলাইনের দালালরা ডাউনলাইনের দালালদের বিক্রি থেকে তত্ত্বাবধানেরনাম দিয়ে যে বিশাল কমিশন ভোগ করে – তাকে সুস্পষ্ট জুয়াবাজী ও “অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ ভোগ (اكل اموال الناس بالباطل) –এর অন্তর্ভূক্ত করেছেন ইসলামী আইনের পণ্ডিতেরা। এক্ষেত্রে ওআইসি’র ইন্টারন্যাশনাল ফিকহ একাডেমীর চীফ স্কলার প্রফেসর ড. আব্দুস সাত্তার আবু গুদ্দাহ’র বক্তব্য প্রণিধানযোগ্য।  তিনি বলেন “…compound brokerage falls under the category of eating up another’s property unjustly and has an element of gambling in it. The main factor that contributes to this is the fact that compound brokerage automatically implies that a portion from the sales of the down line will be channeled to the up line.”

[The Awakening, November 2008; http:// theawakening.blogspot.com/2008]

মালয়েশিয়ার বিশিষ্ট পণ্ডিত জাহারুদ্দিন আব্দুর রহমান মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের আপলাইন কর্তৃক সুদূর-বহুদূর  পর্যন্ত ডাউনলাইনের কমিশন ভোগকে হারাম গণ্য করে বলেন,

“Generally, commission that is earned through sales of goods and services (like brokerage fee) is permissible in Islam. …However the commission in MLM  and pyramid schemes may convert to haram status if (1) sales commission of the network is tied to his/her personal sale….” (2) Commission originates from an unknown down line because the network is too big. As a result, the upline seem to enjoy commission without the need to put any effort. This could be classified as compound brokerage (broker on broker on broker…) which falls under the category of eating up another’s property unjustly and has an element of gambling in it.”

(www.zaharuddin.net)

ইন্টারন্যাশনাল ফিকহ একাডেমী কর্তৃক প্রদত্ত একটি ফতোয়ায় (legal verdict) মাল্টি লেভেল মার্কেটিং কে হারাম ঘোষণা করে বলা হয়েছে যে, এ সিস্টেমে আপলাইনের দালালদেরকে যে কমিশন দেয়া হয় তা বৈধ দালালীর ফি’র (brokerage fee) অনুরূপ নয়; কারণ এর মধ্যে জুয়াবাজী নিহিত রয়েছে। (…that the commission paid is not like a brokerage fee, because it involves activities similar to gambling) ।

[দেখুন ফতোয়া নং /২৪, ১৭ জুলাই ২০০৩]

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের কমিশন সিস্টেমে কিভাবে জুয়াবাজী ও অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ ভোগজড়িয়ে আছে তার চমৎকার ব্যাখ্যা দিয়েছেন শেখ সালীম আল হিলালী। তার ভাষায় – “This type of business is pure gambling because the purpose is to develop continuous network of people. With this network, large number of people t the bottom of the pyramid (down line) pays money to a few people at the top (up line). In this scheme, no new wealth is created; the only wealth gained by any participation is wealth lost by other participants. Each new member pays for the chance to profit from payment of others who might join later.”

[The Awakening, November 2008; http:// theawakening.blogspot.com/2008]

আপলাইন কর্তৃক বহু নীচের ডাউনলাইনের (যাকে সে চিনেও না) কমিশন ভোগ করার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন জাহারুদ্দিন আব্দুর রহমান –

If the network is too big and the up line does not even know the down line what else to offer assistance, then why should the up line still attain at the expense of the new member?

(www.zaharuddin.net)

শেষকথাঃ

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং সিস্টেমে অনেক ছোট খাটো পদ্ধতিগত (procedural) সমস্যা রয়েছে, যা এ প্রবন্ধে কলেবরের অভাবে আলোচনা করা সম্ভব হল না। তাছাড়া ঐ সমস্যা গুলো খুব একটা মৌলিক পর্যায়ের নয়;  অর্থাৎ চেষ্টা করলেই সেগুলো সংশোধন করে নেয়া যেতে পারে। তবে তার মৌলিক ভিত্তিটি (Theoretical and Substantive basis) হচ্ছে শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) । কোন কোন লেখক এর নাম দিয়েছেন Chain reaction of labour, কেউবা আবার ব্যক্ত করেছেন Chain pyramidal commission কিংবা compound brokerage ইত্যাদি নামে। ইসলামের শ্রমনীতির সাথে “শ্রমের বহুস্তর সুবিধাতত্ত্ব”টির  (Doctrine of multi-level benefit of labour) রয়েছে সরাসরি সংঘর্ষ। তাছাড়া, ইসলাম যে ধরনের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার নির্দেশ দেয়, আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্যকে যেভাবে বিন্যস্ত করতে চায় এবং সর্বোপরি মানুষের আন্তঃসম্পর্কে যে সহমর্মিতা সৃষ্টি করতে চায় ‘শ্রমের বহুস্তর সুবিধাতত্ত্ব’-র উপর প্রতিষ্ঠিত মাল্টি লেভেল মার্কেটিং তার ঠিক বিপরীত অবস্থার সৃষ্টি করে। অতএব এ রকম অর্থ ও শ্রম দর্শনের অবস্থান ইসলামের ভিতরে নয়; বাইরে ।

و الله اعلم بالصواب

ঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃঃ

 “ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং” শীর্ষক বইয়ের পর্যালোচনা

জনাব আতাউর রহমান বঙ্গী তাঁর বইতে (ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং) নেটওয়ার্কিং বিজনেসকে বৈধ প্রমাণ করার জন্য যে সকল প্রমাণ উপস্থাপন করেছেন তার গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো এই প্রবন্ধে  পর্যালোচনা করা হলো। প্রমাণভিত্তিক এই সুস্থ বিতর্কের মাধ্যমে পাঠকবর্গ একটি স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারবেন বলে আমরা আশা রাখি।

প্রথার  (عرف Custom) আইনগত মর্যাদাঃ

জনাব আতাউর রহমান বঙ্গী তাঁর প্রমাণ সমগ্রে সর্বপ্রথম যে বিষয়টির উপর জোর দিয়েছেন তা হলো প্রথা বা উ’রফ (عرف Custom).অর্থ্যাৎ,দীর্ঘদিন যাবৎ প্রচলিত থাকার কারণে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং পদ্ধতি একটি উ’রফ (عرف Custom)-এ পরিণত হয়েছে যার ফলে তা এখন বৈধতার দাবী রাখে। তাঁর ভাষায়,

সুতরাং এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, এমএলএম বা মাল্টিলেভেল মার্কেটিং পদ্ধতি একটি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে একটি শক্তিশালী উরুফ। এবং এই প্রচলিত পদ্ধতিতে আজ পর্যন্ত কোন সংঘাত পরিচালিত হয়নি। যুগ যুগ ধরে প্রচলিত এমএলএম-এর বিপণন পদ্ধতিতে কুরআন এবং সুন্নাহর এমন কোন বিরোধপূর্ণ মেরুদণ্ড দেখা যায়নি যে সংঘাত অনিবার্য। এতেই প্রমাণিত হয় যে, এমএলএম-এর বিপণন পদ্ধতি একটি বৈধ তরিকা

 

(আতাউর রহমান বঙ্গীঃ ইসলামের দৃষ্টিতে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং, পৃষ্ঠা ২৯)

এ ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম যে কথাটি ভালোভাবে বুঝে নেয়া প্রয়োজন তা হলো, মানব জাতির হিদায়াতের (পথ নির্দেশনার) জন্য আল্লাহ যুগে যুগে যে সকল নবী – রাসূল পাঠিয়েছিলেন তাদের প্রত্যেকের মিশন ছিল এই যে তারা আল্লাহ প্রদত্ত ওহীর মাধ্যমে মানুষের গোটা জীবনকে সংশোধন করে দেবেন। তাদের কাউকে কখনো এই মিশন দিয়ে পাঠানো হয়নি যে তারা ঐশী নির্দেশনাগুলোকে সমকালীন জাতির প্রথাসমূহের লেজুর বানিয়ে দেবেন, কিংবা প্রতিষ্ঠিত রীতি-নীতির (Customs and Usages / العرف) সাথে যোগসজশ করে আল্লাহর দ্বীন যতটুকু মানানো যায় ঠিক ততটুকুতেই সন্তুষ্ট থাকবেন। এর বিপরীতে তাদেরকে সুস্পষ্ট নির্দেশ দেয়া হয়েছে যে, লোকদেরকে সাফ জানিয়ে দাও এই পৃথিবীর নিরঙ্কুশ সার্বভৌমত্ব একমাত্র আল্লাহর কাছেই ন্যাস্ত; জীবনের সকল ক্ষেত্রে কেবল তারই নির্দেশ মেনে চলতে হবে। মোদ্দাকথা, আল্লাহর আইনের প্রকৃত উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষের রীতি-নীতি ও প্রথাগুলোকে (Customs and Usages / العرف) সংশোধন করে দেয়া; প্রথার মাধ্যমে সংশোধিত হওয়া নয়।

এখানে একটি সংশয় নিরসন করা প্রয়োজন যা আইনের বইগুলোর একটি মূলনীতি (قاعدة كلية / legal maxim) থেকে তৈরী হয়। নীতিটি হলোঃ

العرف حجة يجب العمل بها

অর্থ্যাৎ, “প্রচলিত প্রথা একটি অবশ্য মান্য দলিল”।

(Custom is a binding proof)

القواعد الفقهية ، د. عبد العزيزمحمد عزام ، دار الحديث ، القاهرة ۲۰۰٥ ص ۱٨۱

পাঠকের মনে প্রশ্ন দেখা দেয় যে, ওহী যদি প্রচলিত প্রথা (Custom) কে সংশোধন করার জন্যই এসে থাকে, তাহলে প্রচলিত প্রথা (Custom) কী করে একটি অবশ্য মান্য দলিল হতে পারে; কিংবা দু’টি যদি পরস্পর বিরোধী হয় তাহলে কোনটিকে প্রাধান্য দেয়া হবে? এর উত্তর হলো- ওহীর মূল কাজ হচ্ছে প্রচলিত প্রথা (Custom)কে সংশোধন করে দেয়া; অতঃপর ঐ সংশোধিত প্রথাটি মেনে নেয়া লোকদের জন্য বাধ্যতামূলক। এটি ছাড়াও প্রথার আরো দু’টি ধরন রয়েছেঃ (১)ওহীর নির্দেশনার সাথে সাংঘর্ষিক প্রথা ও (২) ওহীর নির্দেশনার সাথে সংঘর্ষহীন প্রথা। দ্বিতীয় প্রকারের প্রথাও বাধ্যতামূলক। “প্রচলিত প্রথা একটি অবশ্য মান্য দলিল” – শীর্ষক মূলনীতি (قاعدة كلية / legal maxim) টি মূলত এ রকম প্রথার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।  আর প্রথম প্রকারের প্রথার সাথে ইসলামের কোন রকম আপোষ নেই। কারণ, এই ধরণের প্রথার প্রকোপ থেকে গণমানুষকে মুক্তি দেয়ার জন্যই ইসলামের আবির্ভাব। একদিকে ইসলামের অনুসারী হওয়ার দাবী করা এবং অন্যদিকে ঐ প্রথাকে বিনা চ্যালেঞ্জে মেনে নেয়া কিংবা তা সংশোধনের প্রচেষ্টা অব্যাহত না রাখা নিঃসন্দেহে একপ্রকার ভণ্ডামি। মনে রাখতে হবে, নির্বিচারে সকল প্রথা কোনক্রমেই হালাল হওয়ার দলিল নয়। কারণ, পৃথিবীতে প্রত্যেকটি অপরাধ ও অনৈতিক কাজই প্রথা আকারে বিদ্যমান। আল্লামা সারাখসী লিখেছেন,

كل عرف ورد بخلاف الشرع فهو غير معتبر

অর্থাৎ, “শরীয়তের পরিপন্থী কোন প্রথা-ই গ্রহনযোগ্য নয়।”

(Any custom inconsistent with the Shariah is unacceptable.)

المبسوط للسرخسى ۱۰∕١٩٦   , اثر العرف للدكتور سيد صالح ص۲۰٥،۲۰٦ , القواعد الفقهية , د. عبد العزيزمحمد عزام , دار الحديث , القاهرة ۲۰۰٥ ص ۱٨٥

ডঃ আব্দুল আজিজ আযযাম এর ব্যাখায় লিখেছেন,

العرف لا يكون معتبرا فى التشريع اذا خالف النص الشرعى بمعنى ان لا يكون ما تعارف عليه الناس مخالفا للاحكام الشرعية كما لو تعارف الناس شرب الخمر و لعب الميسر و خروج النساء كاشفات عن بعض اجسامهن مما يجب ستره شرعا و غير هذا من المخالفات التى درج عليها الناس فى مختلف العصور فان مثل هذا العرف يكون عرفا فاسدا و يحكم عليه بالبطلان و عدم الاعتبار لمخالفته للشرع الشريف

(القواعد الفقهية ، د. عبد العزيزمحمد عزام ، دار الحديث ، القاهرة ۲۰۰٥ ص ۱٨٥)

অতএব, একটি প্রথা বা উ’রফ (عرف Custom) কত দীর্ঘ সময় ধরে সমাজে চালু আছে তা বিবেচ্য বিষয় নয়। সর্বাগ্রে যে বিষয়টি  পর্যালোচনা করা জরুরী তা হলো- ঐ প্রথাটি কুরআন-সুন্নাহর কোন নীতির পরিপন্থী কি না। কুরআন-সুন্নাহর কোন নীতির পরিপন্থী হলে দীর্ঘ সময় ধরে সমাজে চালু  থাকার অজুহাতে তা বৈধ হয়ে যায় না। বরং তখন বুঝে নিতে হবে যে, দীর্ঘদিন প্রচলিত থাকার সুবাধে এ প্রথাটি একটি শক্তিশালী কুপ্রথায় পরিণত হয়েছে-যার জঞ্জাল থেকে সমাজ দেহকে মুক্ত করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো আশু কর্তব্য হয়ে দাড়িয়েছে।

দ্বিতীয় যে প্রমাণটি তিনি ব্যবহার করেছেন তাও ইসলামী আইনের আরেকটি মূলনীতি ( قاعدة كلية / legal maxim)। আর তা হলোঃ

الضرورات تبيح المحظورات

“প্রয়োজন নিষিদ্ধ কাজকে বৈধ করে দেয়।”

(Necessity knows no law)

(الاشباه و النظائر للسيوطى ص 83 ، الاشباه و النظائر لابن نجيم ص 85 ، مجلة الاحكام العدلية لعلماء استانة  مادة 21 ، الوجيز فى ايضاح قواعد الفقه الكلية للدكتور محمد صدقى بن احمد البورنو ، الطبعة الثانية ، مكتبة المعارف ، الرياض 1989 ، ص 175 )

 “জরুরতের দৃষ্টিতে এমএলএম” শিরোনামে তিনি লিখেছেন,

এমএলএম পদ্ধতি বিপণন প্রক্রিয়া উন্নত বিশ্বে এখন অর্থনৈতিক উন্নয়নেরস্মারক হিসাবে কাজ করছে। আর অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডই হচ্ছে ইহকালিন মানুষের চালিকা শক্তি। অর্থনৈতিক কারণে দেখা যাচ্ছে আজ কোথাও ধর্ম কর্মই স্থবির হয়ে পরছে। জরুরতের কারণে অনেক সময় কঠিন হওয়া সত্ত্বেও দুর্বল দলিল পেশ করে মানুষের কল্যানের কারণে সহজ করে দেয়া হয়।

অর্থনৈতিক যেহেতু সবার জন্যই জরুরী সেহেতু জাতি বর্ণ গোত্র নির্বিশেষে সকল শ্রেণী মানুষের সম্পৃক্ততা বিবেচনা করে এমএলএম পদ্ধতি বা মাল্টিলেভেল মার্কেটিং-এর বিপণন পদ্ধতির ক্ষেত্রেও দুর্বল মত বা অন্যান্য মাযহাবের মত গ্রহণ করা যেতে পারে।

(পৃষ্ঠা, ৩০)

 

তিনটি কঠিন শর্ত পূরণসাপেক্ষেই কেবল একটি নিষিদ্ধ কাজ সিদ্ধ হয়ঃ

প্রত্যেকটি কাজই তো কোনো না কোনো প্রয়োজনের প্রেক্ষিতেই করা হয়। মানুষ কি প্রয়োজন ছাড়া কোনো কাজ করে? এ কথাটি মাথায় রেখে যখন কোন ব্যাক্তি প্রয়োজন নিষিদ্ধ কাজকে বৈধ করে দেয় (الضرورات تبيح المحظورات)-শীর্ষক মূলনীতিটির দিকে তাকায়, অমনিই সে ভাবতে থাকে প্রয়োজন যদি সব নিষিদ্ধ কাজকে  বৈধ করে দেয় তাহলে আইনের আর কী প্রয়োজন; কিংবা এ নীতি চলতে থাকলে  কোন কাজটি শেষ পর্যন্ত আর নিষিদ্ধ থাকছে?

এর উত্তর হচ্ছে, প্রয়োজন দেখা দিলেই একটি নিষিদ্ধ কাজ সিদ্ধ হয়ে যায় না।প্রয়োজন নিষিদ্ধ কাজকে বৈধ করে দেয় (الضرورات تبيح المحظورات) মূলনীতিটি প্রয়োগ করার জন্য তিনটি পূর্বশর্ত পূরণ করতে হয়। কোরআনের যে আয়াত থেকে এ মূলনীতিটি বের করা হয়েছে তাতেই ঐ তিনটি শর্তের উল্লেখ রয়েছে। আয়াতটি হলো,

فمن اضطر غير باغ و لا عاد فلا اثم عليه (البقرة ١٧۳)

অর্থ্যাৎ, “তবে যে ব্যক্তি অক্ষমতার মধ্যে অবস্থান করে আইন ভংগ করার কোন প্রেরণা ছাড়াই প্রয়োজনের সীমা না পেরিয়ে এ নিষিদ্ধ জিনিসগুলোর মধ্য থেকে কোনটা খায়, সে জন্য তার গোনাহ হবে না।”

(বাকারা, ১৭৩)

এ আয়াতের অনুবাদের রেখাচিহ্নিত অংশ থেকেই তিনটি শর্ত পরিস্কার বুঝা যাচ্ছে। আর তা হলোঃ

(১) যথার্থ অক্ষমতা (যেমন ক্ষুধা বা পিপাসা প্রাণ সংহারক প্রমাণিত হতে থাকা এবং এ অবস্থায় হারাম জিনিস ছাড়া আর কিছু না পাওয়া যাওয়া);

(২) মনের মধ্যে আল্লাহর আইন ভংগ করার ইচ্ছা পোষণ না করা; এবং

(৩) প্রয়োজনের সীমা অতিক্রম না করা (যেমন কোন হারাম পানীয়ের কয়েক ঢোক পান করলে অথবা হারাম খাদ্যের কয়েক মুঠো খেলে যদি প্রাণ বাঁচে তাহলে তার বেশী ব্যবহার না করা)।

আল্লামা রশীদ রেজা এ আয়াতের ব্যাখ্যায় লিখেছেন,

فمن اضطر الى الاكل مما ذكر بان لم يجد ما يسد به رمقه سواه غير باغ له اى غير طالب له ، راغب فيه لذاته و لا عاد متجاوز قدر الضرورة

(تفسير المنار للسيد محمد رشيد رضا ، دار المنار ، الطبعة الثانية ، القاهرة 1947 ، ج 2 ص 98)

অতএব প্রয়োজন দেখা দিলেই কোন নিষিদ্ধ কাজ বৈধ হয়ে যায় না; বরং বৈধতার জন্য তিনটি কঠিন শর্ত পূরণ করা অপরিহার্য হয়ে পড়ে। তদুপরি সে বৈধতা সকলের জন্য প্রযোজ্য নয়; কেবল সে ব্যক্তিই এর সুবিধা পেতে পারে যে উক্ত অবস্থার ভুক্তভোগী।

বর্তমানে কোন ব্যক্তি যদি যথার্থই অক্ষম, অসচ্ছল ও নিরুপায় হয়ে থাকে তাহলে তার জন্য কেবল এমএলএম বিজনেস কেন তার চেয়েও গুরুতর পন্থা অবলম্বন করার রাস্তা খোলা আছে। কিন্তু একটি কাজ অবৈধ প্রমাণিত হলে অনন্যোপায় ব্যক্তির জন্য প্রযোজ্য শিথিলতাকে ধনী-নির্ধন নির্বিশেষে সকলের জন্য বৈধতার গণ সার্টিফিকেট বানিয়ে নেওয়া কোনক্রমেই সঠিক নয়।

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের সবচেয়ে বড় ত্রুটি

 

“কমিশন ও চেইন পিরামিডাল কমিশনের মধ্যকার সূক্ষ্ণ পার্থক্য”-টি মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের বৈধতার প্রবক্তাদের বেশীর ভাগেরই দৃষ্টি এড়িয়ে গেছে। ইসলামে কমিশনের জন্য যে বৈধতা রয়েছে তা তারা কোনরকম চিন্তা ভাবনা না করেই চেইন পিরামিডাল কমিশনের মধ্যেও প্রয়োগ করে দিচ্ছেন। আর তাদের মধ্য থেকে হাতে গোনা যে ক’জন “কমিশন ও চেইন পিরামিডাল কমিশনের মধ্যকার সূক্ষ্ণ পার্থক্য”-টি ধরতে পেরেছেন তারাও দলিল-প্রমাণ ও তাত্ত্বিক যুক্তি প্রয়োগ ছাড়াই কোন রকম গোজামিল দিয়ে চেইন পিরামিডাল কমিশনকেও বৈধ বলে চালিয়ে দিচ্ছেন।

এ বিষয়টি ভালোভাবে বুঝার জন্য আমি আমার পূর্বেকার প্রবন্ধ (“মাল্টি লেভেল মার্কেটিংবৈধতার সংকট”) থেকে কিছু নির্বাচিত অংশ এখানে উল্লেখ করে দিচ্ছি।

মাল্টিলেভেল মার্কেটিং মূলত ডিস্ট্রিবিউটরদের নেটওয়ার্কের মাধ্যমে পণ্য সেবা বিক্রি করার একটি প্রক্রিয়া (A process of selling of goods and services through a network of distributors) প্রক্রিয়ায় আপলাইন ডাউনলাইন নামে বহু স্তরের (Multi level) ডিস্ট্রিবিউটর তৈরি হয়।

ডাউনলাইনের কোন ব্যক্তি (চাই সে এক হাজার স্তর নিচের ডিস্ট্রিবিউটর হোক এবং সর্বোচ্চ আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটর তাকে নাই বা চিনুক) কর্তৃক বিক্রিত পণ্যদ্রব্যের একটি কমিশন আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটররা পেয়ে থাকে। এই  স্ট্রাকচারটি দেখতে অনেকটা পিরামিডের মতো।

 

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর পদ্ধতি (procedure) বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকমের হলেও এর তত্ত্বগত ভিত্তিটি (theoretical basis) সবসময়ই এক রকম। আর তা হলো, নিম্ন লেভেলের ডিস্ট্রিবিউটর কর্তৃক বিক্রিত পণ্যের একটি কমিশন সর্বোচ্চ লেভেল পর্যন্ত পৌঁছে দেয়া। এই নীতিটি ইসলামের সাথে কতটা সাংঘর্ষিক তা বুঝার জন্য ইসলামের শ্রম নীতিটি প্রথমে ভালোভাবে বুঝে নেয়া প্রয়োজন।  সূরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটি (وان ليس للانسان الا ما سعي  অর্থাৎ মানুষ ঠিক ততো টুকুরই ফল পাবে যততুকু  সে নিজে করেছে) শ্রমনীতির ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক। এর পরের আয়াতে বলা হচ্ছে (لا تزر وازرة وزر اخري  অর্থাৎ একজন আরেকজনের বোঝা বহন করবেনা) দুটি আয়াত অনুযায়ী প্রত্যেক ব্যক্তির আয় দায় (income and liability) সবসময় ব্যক্তিগত পর্যায়ে সীমাবদ্ধ। তবে, শরীয়ত প্রণেতা নিজেই অন্যান্য আয়াত হাদীসে সাধারণ নীতিটির (general principle) কয়েকটি ব্যতিক্রম (exceptions) উল্লেখ করে দিয়েছেন। তন্মধ্যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ধনী লোকদের সম্পদে অভাবী মানুষের অধিকার এবং আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রে সদকায়ে জারিয়া, গোনাহে জারিয়া জীবিত লোক কর্তৃক কোন ভালো কাজের সওয়াব মৃত ব্যক্তির নিকট পাঠানো (ঈসালে সওয়াব) অন্যতম। এখানে উল্লেখ্য যে, শরীয়ত প্রণেতা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে সকল ব্যতিক্রম উল্লেখ করেছেন সেগুলো বাদ দিলে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটি ইসলামের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা শ্রমনীতির একটি প্রতিষ্ঠিত নীতি (established rule)

 

নাজমের ৩৯ নং আয়াত থেকে পরিষ্কার বুঝা যাচ্ছে, মানুষ কেবল তার নিজের শ্রমের প্রত্যক্ষ ফল লাভের অধিকারী। কারো নিযুক্ত কর্মচারী** না হলে একজন আরেকজনের শ্রমের ফলে অংশীদার হতে পারেনা। একই ভাবে মানুষ তার শ্রমের ফল কেবল নিকটবর্তী লেভেল থেকেই আশা করতে পারে; কোন ক্রমেই তা বহুস্তর (multi level) পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারেনা ইসলামের এই নীতিটি মানবীয় বুদ্ধি বিবেচনার সাথে সম্পূর্ণ সংগতিপূর্ণ। এমনকি যারা আল্লাহতে বিশ্বাস করেনা, তারাও অবচেতন ভাবে এই নীতিটি অনুসরণ করে চলছে। কয়েকটি উদাহরণ দিলে বিষয়টি আরো পরিষ্কার ভাবে বুঝা যাবে।

 

**কারণ ক্ষেত্রে মূল মালিক বেতন ভাতা দিয়ে কর্মচারীর শ্রম টুকু কিনে নেয়। ফলশ্রুতিতে শ্রমের ফলের উপর মালিকের অধিকার জন্মায়। পক্ষান্তরে ডাউনলাইনের কোন ডিস্ট্রিবিউটর (বিশেষ করে অনেক নিম্ন পর্যায়ের) আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটরদের বেতনভুক কর্মচারী (paid employee) নয়।

 

মানুষ সামাজিক জীব (social being) কথাটির পেছনে মানবিকতার তুলনায় অসহায়ত্বের দিকটিই প্রবল। অর্থাৎ, মানুষ পৃথিবীতে সবচেয়ে অসহায় প্রাণী। তার এই অসহায়ত্ব তাকে বাধ্য করে সামষ্টিক জীবনযাপন করতে। তার পরিধেয় এক টুকরো বস্ত্রের পেছনে অসংখ্য বনী আদমের শ্রম জড়িত। অগণিত লোকের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ পরিশ্রমের ফলে এক মুঠো ভাত তার খাবার প্লেটে হাজির হয়। এক কথায়, মানুষ তার মৌলিক প্রয়োজনের একটিও অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ শ্রম ছাড়া পূরণ করতে পারেনা। এখন একজন ব্যক্তি কতজন লোককে পারিশ্রমিক দিতে নীতিগতভাবে বাধ্যমানবীয় সুস্থ বিবেক বলছে তাকে কেবল ব্যক্তির পারিশ্রমিক দিতে বাধ্য করা যেতে পারে, যে তার পেছনে প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়েছে; পরোক্ষ শ্রম নয়। আর এই নীতিটিই দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ব্যক্ত হয়েছে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটিতে (وان ليس للانسان الا ما سعي  অর্থাৎ মানুষ ঠিক ততো টুকুরই ফল পাবে যা সে নিজে করেছে)

একজন প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক তার প্রত্যক্ষ শ্রমের ফল দাবী করতে পারে, যা সাধারণত তাকে বেতন আকারে প্রদান করা হয়। কিন্তু কোন চুক্তি মূলে শিক্ষকের দাবী বৈধ হিসাবে বিবেচিত হতে পারেনা যে, তার ছাত্ররা যত জনকে শিক্ষিত করে কর্মক্ষম করে তুলবে এবং তারা ভবিষ্যতে যাদেরকে যোগ্য করে তুলবে তাদের প্রত্যেকের আয়ের একটি ক্ষুদ্র অংশ উর্ধ্বতন শিক্ষককে কমিশন আকারে দিতে হবে।

 

বলুন তো দেখি, শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে (multi level benefit of labour) মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে বৈধ নির্দোষ মনে করা হলে শিক্ষক সম্প্রদায়ের উক্ত দাবীকে কেন মেনে নেয়া হবেনা ? পৃথিবীর কোন সভ্য সুস্থ মনের অধিকারী জাতি এমন উদ্ভট দাবী মেনে নিবে বলে আমার মনে হয়না। কারণ নীতির ফলাফল তখন কেবল শিক্ষক সম্প্রদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবেনা। একই রকম দাবী উঠতে থাকবে কুলি, মজুর, শ্রমিক, ডাক্তার, প্রকৌশলীএক কথায় শ্রমজীবি মানুষের প্রতিটি সেক্টর থেকেই। কারণ ইতোপূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, মানব সমাজের প্রতিটি ব্যক্তিই অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ শ্রমের উপর নির্ভরশীল। ঠাণ্ডা মাথায় একবার ভেবে দেখুনতো, সমাজের প্রতিটি সেক্টর থেকে এরকম দাবী উঠতে থাকলে আমাদের সামগ্রিক জীবনে কী ধরনের বিপর্যয় নেমে আসবে ? আর  যদি বলা হয় শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে (multi level benefit of labour) সব ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হবেনা, তাহলে জিজ্ঞাস্য হচ্ছে এই সীমিতকরণ হবে কিসের ভিত্তিতেবিশেষ করে সব ক্ষেত্রেই যখন আমরাশ্রমের খেলা’- দেখতে পাচ্ছি ?  

 

এতোক্ষণের আলোচনায় বিষয়টি অত্যন্ত সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) কিছুতেই বৈধ বলে বিবেচিত হতে পারেনা। অথচ অবৈধ নীতিটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় তাত্ত্বিক ভিত্তি (theoretical basis) ভিত্তি সরিয়ে ফেললে প্রকারের বিজনেস টিকে থাকতে পারে না।

 

মাল্টি লেভেল মার্কেটিং  শ্রমের বহুস্তর সুবিধা (multi level benefit of labour) তত্ত্বটি কিভাবে জড়িয়ে আছে অংশে আমরা তা আলোচনা করবো।

 

আমি কোন সাধারণ কোম্পানী থেকে পণ্য কিনে অপরজনের কাছে বিক্রির মাধ্যমে লাভবান হওয়ার বৈধ অধিকার রাখি। অনুরূপ ভাবে কোন ক্রেতা সংগ্রহ করে দেয়ার মাধ্যমে কোম্পানীর কাছ থেকে দালালীর কমিশন (brokerage fee) নেয়ার অধিকারও আমার রয়েছে। কারণ উভয় ক্ষেত্রেই আমার প্রত্যক্ষ শ্রম জড়িয়ে আছে। ফলে, আমি আমার প্রত্যক্ষ শ্রমের প্রত্যক্ষ সুবিধা নিকটতম স্তর থেকে একবারই পাওয়ার অধিকার রাখি। কিন্তু, মাল্টি লেভেল মার্কেটিং একটি নির্দিষ্ট পয়েন্ট ভ্যালুর পণ্য কিনে আমি দালালীর অধিকার অর্জন করি যা বাস্তবায়ন করতে আমাকে প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়ে নতুন ক্রেতা সংগ্রহ করতে হয়। অতএব, আমি ব্যক্তিগত ভাবে যত বেশী ক্রেতা সংগ্রহ করতে পারবো ঠিক ততজনের কমিশন লাভের বৈধ অধিকার রাখি; কিন্তু কোন ক্রমেই আমার প্রত্যক্ষ শ্রম স্বয়ংক্রিয় প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে সুদূরবহুদূর পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারেনা অথচ মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে তা ঘটে চলছে। অর্থাৎ, আমি যদি কাউকে নিয়োগ দেই তাহলে তার মাধ্যমে সৃষ্ট তার নিম্ন পর্যায়ের (তা হাজার মাইল লম্বা হলেও) সমস্ত নতুন চুক্তির প্রত্যেকটির সুবিধা আমি কমিশন আকারে পেতে থাকি। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে আমার ডাউনলাইন এতোদূর বিস্তৃত হয়ে পড়েছে যাদের পেছনেতথাকথিত তত্ত্বাবধানব্যতীত আমার কোন প্রত্যক্ষ শ্রম (direct labour) নেই; এমনকি তাদের সাথে আমার কোন পরিচয়ও নেই।

 

প্রত্যেক পক্ষই নিজের ইনকামের নিরংকুশ মালিক; এক পক্ষের ইনকামে (কিংবা তা থেকে ভবিষ্যতে উদ্ভূত কোন আয়ে) অপর পক্ষের কোন রকম লেজ লাগানো নেই। এখান থেকেও একই কথা প্রমাণিত হচ্ছে, প্রত্যেক ব্যক্তি তার শ্রমের একস্তর সুবিধা (uni-level benefit) নিকটতম স্তর (nearest level) থেকেই পেয়ে থাকে; বহুস্তর (multi-level) থেকে নয়।

 

বিষয়টি মাথায় রেখে এবার  মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের প্রতিদান স্কীম (remuneration scheme) টি পর্যালোচনা করা যাক। সিস্টেমের সর্বোচ্চ চূড়ায় রয়েছে কিছু রাঘব বোয়াল যারা প্রথম দিককার সদস্য। এরপর থেকে যারাই এর সাথে যুক্ত হতে চেয়েছে তাদের প্রত্যেককে বিদ্যমান রাঘব বোয়ালদের রেফারেন্স ** সাপেক্ষেই পণ্য কিনতে (বা দালালির অধিকার নিতে) বাধ্য করা হয়েছে। অর্থ্যাৎ, উচ্চতর দালালের অধীনস্ততা না মেনে সরাসরি কোম্পানির  দালাল হওয়ার রাস্তা খোলা রাখা হয়নি। কারণ,তখন উচ্চতর রাঘব বোয়ালদের বসে বসে কিংবা তথাকথিত তত্ত্বাবধানেরনামে কোটি কোটি টাকা কামানোর রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া, তখন তাদেরকেও সবসময় সরাসরি পণ্য বিক্রয়ের (direct selling of goods) কঠোর শ্রম দিতে হয়। নামকাওয়াস্তে তত্ত্বাবধাননামক শ্রমের মাধ্যমে (তাও আবার অনেক ক্ষেত্রে কাল্পনিক/imaginary) কোটি কোটি টাকা কামানোর সুযোগ থাকলে সরাসরি পণ্য বিক্রয়ের (direct selling of goods) কঠোর শ্রম দিয়ে মাসে মাত্র কয়েক হাজার টাকা ইনকাম করতে যায় কোন বোকা! কারণ, ডাউনলাইন নিজের অর্থগৃধ্নু মানসিকতায় যথাযথ সচেতন হলে তাদের শ্রমেই দালালচক্রের সংখ্যা বাড়তে থাকে যার কমিশন অনায়াসে আপলাইনের উস্তাদদের কাছে পৌঁছে যায়। এখানে একটি সরল প্রশ্ন হচ্ছে, ইসলাম শ্রম পারিশ্রমিকের মধ্যে যে সুমহান ভারসাম্যপূর্ণ নীতি নির্ধারণ করেছে তার অধীনে রকম মতলববাজীর স্থান থাকতে পারে কি ?

 

বিশেষজ্ঞদেরমতামত

পলাইনের দালালরা ডাউনলাইনের দালালদের বিক্রি থেকে তত্ত্বাবধানেরনাম দিয়ে যে বিশাল কমিশন ভোগ করেতাকে সুস্পষ্ট জুয়াবাজী অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ ভোগ (اكل اموال الناس بالباطل) এর অন্তর্ভূক্ত করেছেন ইসলামী আইনের ণ্ডিতেরা। এক্ষেত্রে ওআইসি ন্টারন্যাশনাল ফিকহ একাডেমীর চীফ স্কলার প্রফেসর . আব্দুস সাত্তার আবু গুদ্দাহ বক্তব্য প্রণিধানযোগ্য।  তিনি বলেন “…compound brokerage falls under the category of eating up another’s property unjustly and has an element of gambling in it. The main factor that contributes to this is the fact that compound brokerage automatically implies that a portion from the sales of the down line will be channeled to the up line.”

[The Awakening, November 2008; http:// theawakening.blogspot.com/2008]

 

 

মালয়েশিয়ার বিশিষ্ট ণ্ডি জাহারুদ্দিন আব্দুর রহমান মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের আপলাইন কর্তৃক সুদূরবহুদূর  পর্যন্ত ডাউনলাইনের কমিশন ভোগকে হারাম গণ্য করে বলেন,

“Generally, commission that is earned through sales of goods and services (like brokerage fee) is permissible in Islam. …However the commission in MLM  and pyramid schemes may convert to haram status if (1) sales commission of the network is tied to his/her personal sale….” (2) Commission originates from an unknown down line because the network is too big. As a result, the upline seem to enjoy commission without the need to put any effort. This could be classified as compound brokerage (broker on broker on broker…) which falls under the category of eating up another’s property unjustly and has an element of gambling in it.”

(www.zaharuddin.net)

 

ইন্টারন্যাশনাল ফিকহ একাডেমী কর্তৃক প্রদত্ত একটি ফতোয়ায় (legal verdict) মাল্টি লেভেল মার্কেটিং কে হারাম ঘোষণা করে বলা হয়েছে যে, সিস্টেমে আপলাইনের দালালদেরকে যে কমিশন দেয়া হয় তা বৈধ দালালীর ফি (brokerage fee) অনুরূপ নয়; কারণ এর মধ্যে জুয়াবাজী নিহিত রয়েছে। (…that the commission paid is not like a brokerage fee, because it involves activities similar to gambling)      

[দেখুন ফতোয়া নং /২৪, ১৭ জুলাই ২০০৩]

 

মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের কমিশন সিস্টেমে কিভাবে জুয়াবাজী অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ ভোগজড়িয়ে আছে তার চমৎকার ব্যাখ্যা দিয়েছেন শেখ সালীম আল হিলালী। তার ভাষায় – “This type of business is pure gambling because the purpose is to develop continuous network of people. With this network, large number of people t the bottom of the pyramid (down line) pays money to a few people at the top (up line). In this scheme, no new wealth is created; the only wealth gained by any participation is wealth lost by other participants. Each new member pays for the chance to profit from payment of others who might join later.”

[The Awakening, November 2008; http:// theawakening.blogspot.com/2008]

 

আপলাইন কর্তৃক বহু নীচের ডাউনলাইনের (যাকে সে চিনেও না) কমিশন ভোগ করার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন জাহারুদ্দিন আব্দুর রহমান

If the network is too big and the up line does not even know the down line what else to offer assistance, then why should the up line still attain at the expense of the new member?

(www.zaharuddin.net) ”

মধ্যস্বত্ত্বভোগীর রকমফের

 

জনাব বঙ্গী মধ্যস্বত্বভোগী বিলোপসাধনের মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের বাহারী প্রচারণা দ্বারা প্রভাবিত হয়ে লিখেছেনঃ

 “যা হোক মূলকথা হলো এই ব্যবসা পদ্ধতির বিষয় বস্তু পণ্য উৎপাদক থেকে ক্রেতা সাধারণের হাতে মধ্য স্বত্ত্বভোগীদেরকে বাদ দিয়ে সহজে পণ্য সামগ্রি ভোক্তাদের কাছে পৌঁছিয়ে দেয়া। আর ইসলামিক অর্থনীতিতেও মধ্যস্থভোগীদেরকে নিরোৎসাহিত করা হয়েছে এবং একথাও বলা হয় যে, পণ্য উৎপাদক যখন তার পণ্য নিয়ে বাজারে বা বিক্রয় করতে যাবে তখন তোমরা কেউ তা আগ বাড়িয়ে মধ্যস্বত্ত্বভোগী সেজে ক্রয় করে বেশী দামে বিক্রি না করার জন্য।

তারপর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একটি হাদীসের উদ্ধৃতি দিতে গিয়ে লিখেছেন,

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন

عن ابى هريرة رضى الله عنه قال نهى النبى صلى الله عليه و سلم عن التلقى و ان يبيع حاضر لباد-

হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন-বণিকদের সঙ্গে বা ব্যবসায়ীদের সাথে পূর্বে সাক্ষাৎ করা এবং গ্রামবাসীদের পক্ষে শহরবাসীর বিক্রয় করা নিষেধ করেছেন। (বুখারী শরীফ-৪/৭০, হাদীস নং-২০২৩)

 

কারণ মধ্যস্বত্বভোগিরা যে টাকা বেশি পেয়ে বিক্রি করে তা যদি উৎপাদক সরাসরি বেশি দামে বিক্রি করতে পারে তাহলে উৎপাদক আরো বেশি উৎসাহি হয়ে পণ্য উৎপাদনে মনোযোগী হবে। এতে করে ক্রেতা সাধারণও লাভবান হয়।

( পৃষ্ঠা ২২)

আমার পূর্ব প্রবন্ধেই (“মাল্টি লেভেল মার্কেটিংবৈধতার সংকট”) এর আসল রূপ বিশ্লেষণ করে আমি লিখেছিলামঃ

 

ট্রাডিশনাল মার্কেটিংয়ে একটি পণ্য উৎপাদক থেকে ভোক্তার হাতে পৌঁছা পর্যন্ত হাতেগোনা কয়েকটি মধ্যস্বত্বভোগী থাকে। [যেমন, Producer → agent → whole seller → retailer → consumer/ উৎপাদকএজেন্টপাইকারখুচরা বিক্রেতাভোক্তা ] কিন্তু, মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের বাহারী প্রচারণার সময় গুটিকতেক মধ্যস্বত্ত্বভোগী বিলোপ করার শ্লোগান দিয়ে তারা নিজেরাই ল্টো ডাউনলাইন আপলাইন নাম দিয়ে শত সহস্র মধ্যস্বত্ত্বভোগী সৃষ্টি করে চলেছে। এই বিপুল সংখ্যক দালাল গোষ্ঠীকে কমিশনের বখরা দিতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই কোম্পানীকে বর্ধিত মূল্যে পণ্য বিক্রি করতে হয়। কিন্তু প্রচলিত পণ্যদ্রব্যের (যেমন চাল, ডাল, তেল, সাবান সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসমূহ) দাম পাবলিকের জানা থাকায় কোম্পানী যদি এসব পণ্য বর্ধিত মূল্যে বিক্রি করে তাহলে পাবলিককে সহজে জালে আটকানো সম্ভব নয়। আবার প্রচলিত বাজারমূল্যে বিক্রি করলে বিপুল সংখ্যক দালাল গোষ্ঠীর মুনাফার পরিমাণ মারাত্মিক ভাবে কমে যায়। ফলে তারা এক অভিনব ফন্দি আঁটে। আরতাহলোএমনসবপণ্যেরপ্যাকেজতৈরীকরাযেগুলোরদামসম্পর্কেসাধারণনগনেরসঠিককোনধারণানেই।এইপ্রক্রিয়ায়সুলভমূল্যেপণ্যবিক্রিরবাহারীপ্রচারণা  বাস্তবে (জনগণেরঅজ্ঞতাকেপুঁজিকরে) মূল্যবহুগুণবাড়িয়েবিক্রিউভয়কূলইরক্ষাকরাযায়।

 

দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ার আরেকটি বিশেষ কারণ হচ্ছে উৎপাদক ভোক্তার মাঝখানে অতিরিক্ত মধ্যস্বত্ত্বভোগী সৃষ্টি হওয়া। যাদের কাজ হলো অল্প শ্রমে বেশী মুনাফা অর্জন করা। উদ্দেশ্যে তারা উৎপাদক ভোক্তার মাঝখানে অনর্থক বাধা হয়ে দাঁড়ায়। কারণ উৎপাদক কে সরাসরি ভোক্তার কাছে পৌছার সুযোগ দিলে স্বাভাবিক মূল্যেই পণ্য বিক্রি হয়ে যায়। তাই তারা ভোক্তার কাছে পৌছার আগেই উৎপাদক/ বিক্রেতার কাছ থেকে পণ্য কিনে পুনরায় ভোক্তার কাছে অধিক মুনাফা সহকারে বিক্রি করে। ভোক্তা উৎপাদকের মধ্যখানে যত বেশী মধ্যস্বত্ত্বভোগী থাকবে, ভোক্তার কাছে পৌঁছতে পৌঁছতে দ্রব্যমূল্য ক্রমশ ততই বাড়তে থাকবে। এই মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের চক্র ভেঙ্গে দিয়ে জনগণকে অতিরিক্ত দ্রব্যমূল্য থেকে  মুক্তি দেওয়ার উদ্দেশ্যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘোষণা করেন যে, “শহরে বসবাসকারী কোন ব্যক্তি শহরের বাইরে থেকে আগত কোন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পণ্য কিনে পুনরায় তা শহরের বাসিন্দাদের কাছে বিক্রি করতে পারবেনা। (نهي رسول الله صلي الله عليه وسلم ان يبيع حاضر لباد سنن ابى داود ح 3439 , سنن الترمذى ح 1222 , سنن ابن ماجة ح 2177)

 

নিষেধাজ্ঞা জারী হওয়ার ফলে শহরের ভিতরে বসবাসরত মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের হালকা পরিশ্রমে অধিক মুনাফা লাভের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেল। ফলে তাদের একটি গ্রুপ ভিন্ন ফন্দি আঁটলো। তারা শহর থেকে একটু বের হয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতো। শহরমুখী ব্যবসায়ীর দল দেখতে পেলে আগ বাড়িয়ে তাদের কাছ থেকে পণ্য কিনে শহরের বাসিন্দাদের কাছে পুনরায় বিক্রি করতো। অর্থাৎ তারা আগের তুলনায় খানিকটা বেশী শ্রম দিয়ে একটু ভিন্ন আঙ্গিকে তাদের মধ্যস্বত্ত্বভোগের কারবার চালিয়ে যাচ্ছিল। কথা জানতে পেরে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

نهي رسول الله صلي الله عليه وسلم عن تلقي الجلب والركبان (صحيح مسلم ح 1519 , سنن الترمذى ح 1221 )

অর্থাৎরাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শহরবাসীকে শহরমুখী ব্যবসায়ীদের সাথে সাক্ষাৎ করে পণ্য কিনে পুনরায় শহরে বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন

দীর্ঘ আলোচনায় বিষয়টি অত্যন্ত পরিষ্কার যে, ইসলাম দ্রব্যমূল্যের বিষয়টি অত্যন্ত সিরিয়াসলি নিয়ে থাকে। কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে যারা জনগণকে বর্ধিত মূল্যে পণ্য কিনতে বাধ্য করে  ইসলাম তাদেরকে অভিশপ্ত ঘোষণা করে। বৃহৎ অর্থনীতির অনিবার্য ক্ষেত্র সমূহে কিছু নিয়ন্ত্রিত মধ্যস্বত্ত্বভোগীর অনুমতি দিলেও ইসলাম ভোক্তা উৎপাদকের মাঝখানে অযথামধ্যস্বত্ত্বভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর ঘোর বিরোধী।

 

কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ের মধ্যস্বত্ত্বভোগী দালালদের বিরাটসংখ্যাটি বিবেচনা করুন। আপনি তাদের কাছ থেকে এই মুহুর্তে একটি পণ্য কিনতে চাইলে আপনার আপলাইনের কয়েক হাজার অনর্থক দালালের জন্য বরাদ্দকৃত কমিশনের অর্থ পরিশোধ করেই আপনাকে কিনতে হবে। অথচ কোম্পানীর পণ্য আপনার কাছে পরিচিত করার জন্য আপনার উর্ধ্বতন একজন দালালই যথেষ্ট ছিল। আর তখন অসংখ্য দালালের কমিশনের বোঝা না থাকার ফলে প্রচলিত মূল্যের চেয়ে অনেক কম মূল্যে আপনাকে পণ্যটি দেয়া যেতো। অবৈধ মুনাফাখোরীর বাজার গরম করার জন্য কয়েক হাজার অনর্থক দালালমধ্যস্বত্ত্বভোগীর কমিশনের টাকা দিতে বাধ্য করা হচ্ছে নতুন প্রত্যেকটি ক্রেতাকে। গ্রাম পর্যায়ে সরেজমিনে তদন্ত করে দেখা গেছে  তাদের অধিকাংশ ক্রেতাই তাদের উর্ধ্বতন অগণিত মধ্যস্বত্ত্বভোগী দালালের কমিশনের কথা কিছুই জানে না। সেক্ষেত্রে তো তা সুস্পষ্ট প্রতারণার শামিল। আর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, من غش فليس منا  “যে প্রতারণা করে সে আমার দলভুক্ত না” (মুসলিম তিরমিযি)

আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, বর্ধিত মূল্যে বিক্রির উদ্দেশ্যে তারা এমন সব পণ্য হাজির করে যার স্বাভাবিক দাম সম্পর্কে সাধারণ মানুষ কিছুই জানে না। অনেক সময় আন্দাজও করতে পারে না। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ক্ষেত্রে এমন বর্ধিত মূল্যে বিক্রি সম্ভব নয়। কারণ সেগুলোর দাম সম্পর্কে মোটামুটি সবাই সচেতন। প্রকারের কারবারের সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, পণ্যেরমূল্যসম্পর্কেযথাযথজ্ঞাননেইএমনলোকেরকাছেউচ্চমূল্যেপণ্যবিক্রিকরানিঃসন্দেহেএকপ্রকারজুলম

(ইবনে রুশদ, আল কাওয়ায়েদ, পৃষ্ঠা ৬০১)

আর ইবনে জারীর  তাবারী সূরা নিসা ২৯ নং আয়াতে অন্যায়ভাবে অন্যের সম্পদ খাওয়া” –‘ ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন

يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل اى نهى عن اكلهم اموالهم بالباطل اى بالربا و القمار و البخس و الظلم (جامع البيان المعروف ب تفسير الطبرى ج 4, ص 42 )

হে ঈমানদাররা! তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো নাঅর্থ্যাৎ, আল্লাহ আয়াতের মাধ্যমে একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে খাওয়াকে নিষিদ্ধ করেছেন। আর অন্যায় ভাবে”-‘ মানে হলোসুদ, জুয়া, অতি কম মূল্যে ক্রয় করা অতি বেশি মূল্যে বিক্রি করা।

(জামিউল বায়ান, ৪র্থ খণ্ড, পৃষ্ঠা ৪২)

 

মাল্টিলেভেল মার্কেটিং বনাম মুদারাবা (Profit Loss Sharing), মুশারাকা (Partnership), কাফালা (Bailment) ও ওয়াকালা (Agency)

 

মুদারাবা (Profit Loss Sharing), মুশারাকা (Partnership), কাফালা (Bailment) ও ওয়াকালা (Agency) – এর প্রত্যেকটিই বৈধ ব্যবসা পদ্ধতি। কিন্তু এগুলোর কোন একটির সাথেও Multilevel Benefit এর কোন রূপ সম্পৃক্ততা নেই; এর প্রত্যেকটিতেই রয়েছে Unilevel Benefit. [Multilevel Benefit Unilevel Benefit এর ব্যাখ্যা উদাহরণ সহকারে জানার জন্য থেকে ১৪ পৃষ্ঠাগুলো আরেকবার পড়ুন।] অতএব এগুলোর বৈধতা থেকে এমএলএম বিজনেসের (যার মূল ভিত্তিই হলো Multilevel Benefit) বৈধতা কিছুতেই প্রমাণিত হয় না।

শ্রমবিহীন মুনাফাকে হালাল করার এক অদ্ভূত যুক্তিঃ

 

বঙ্গী সাহেবের দৃষ্টিতে শ্রম একটি অটো মেশিনের (Auto Machine) নাম যা একবার চাবি দিলে আর কখনো পেছন ফিরে তাকায় না- ঊর্দ্ধগতিতে কেবল সামনের দিকেই ধাবিত হতে থাকে। তাঁর নিজের ভাষায় শুনুনঃ

“এমএলএম পদ্ধতি বা মাল্টিলেভেল মার্কেটিং কোম্পানিগুলোতে একবার যদি কেউ ডিস্ট্রিবিউটর হয়ে কাজ করে পরবর্তীতে যদি কাজ নাও করে      তাহলেও তার শ্রম কোম্পানিতে জড়িয়ে আছে বলে ধরে নেয়া হয়।”

                                 (পৃষ্ঠা ৪৯)

শ্রমের এমন আজব ক্ষমতা (যে একবার প্রয়োগ করা হলে তা অসীম লেভেল পর্যন্ত স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলতে থাকে এবং বিভিন্ন স্টেশনে বিরতি দিয়ে দিয়ে প্রথম বিনিয়োগকারী বরাবর কেবল মুনাফাই পাঠাতে থাকে) – সম্পর্কে পাঠকবর্গ কতটুকু ওয়াকেফহাল তা আমি জানিনা। আমার জিজ্ঞাসা কেবল এতটুকুই যে, শ্রমের এ তেলেসমাতি মাজেজা আমাদের সমাজ জীবনের সর্বক্ষেত্রে কেন প্রয়োগ করা হবে না। গোটা মানব সভ্যতাই টিকে আছে মানুষের পারস্পরিক শ্রমের উপর। একবার শ্রম দিয়ে যদি আজীবন তার বেনেফিট দাবী করা বৈধ হয় এবং সকল প্রকার শ্রমের ক্ষেত্রেই তা প্রয়োগ করা হয় (যা অবশ্যই হওয়া উচিত) তাহলে কী সুন্দর(!!!) দৃশ্যের অবতারনা হয় তা প্রথম দিকেই আলোচনা করেছিলাম। এখানে প্রাসঙ্গিকতার কারণে তা আরেকবার উল্লেখ করা হচ্ছে।

মানুষ সামাজিক জীব (social being) কথাটির পেছনে মানবিকতার তুলনায় অসহায়ত্বের দিকটিই প্রবল। অর্থাৎ, মানুষ পৃথিবীতে সবচেয়ে অসহায় প্রাণী। তার এই অসহায়ত্ব তাকে বাধ্য করে সামষ্টিক জীবনযাপন করতে। তার পরিধেয় এক টুকরো বস্ত্রের পেছনে অসংখ্য বনী আদমের শ্রম জড়িত। অগণিত লোকের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ পরিশ্রমের ফলে এক মুঠো ভাত তার খাবার প্লেটে হাজির হয়। এক কথায়, মানুষ তার মৌলিক প্রয়োজনের একটিও অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ শ্রম ছাড়া পূরণ করতে পারেনা। এখন একজন ব্যক্তি কতজন লোককে পারিশ্রমিক দিতে নীতিগতভাবে বাধ্যমানবীয় সুস্থ বিবেক বলছে তাকে কেবল ব্যক্তির পারিশ্রমিক দিতে বাধ্য করা যেতে পারে, যে তার পেছনে প্রত্যক্ষ শ্রম দিয়েছে; পরোক্ষ শ্রম নয়। আর এই নীতিটিই দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ব্যক্ত হয়েছে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটিতে (وان ليس للانسان الا ما سعي  অর্থাৎ মানুষ ঠিক ততো টুকুরই ফল পাবে যা সে নিজে করেছে)

একজন প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক তার প্রত্যক্ষ শ্রমের ফল দাবী করতে পারে, যা সাধারণত তাকে বেতন আকারে প্রদান করা হয়। কিন্তু কোন চুক্তি মূলে শিক্ষকের দাবী বৈধ হিসাবে বিবেচিত হতে পারেনা যে, তার ছাত্ররা যত জনকে শিক্ষিত করে কর্মক্ষম করে তুলবে এবং তারা ভবিষ্যতে যাদেরকে যোগ্য করে তুলবে তাদের প্রত্যেকের আয়ের একটি ক্ষুদ্র অংশ উর্ধ্বতন শিক্ষককে কমিশন আকারে দিতে হবে।

 

বলুন তো দেখি, শ্রমের বহুস্তর সুবিধাকে (multi level benefit of labour) মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে বৈধ নির্দোষ মনে করা হলে শিক্ষক সম্প্রদায়ের উক্ত দাবীকে কেন মেনে নেয়া হবেনা ? পৃথিবীর কোন সভ্য সুস্থ মনের অধিকারী জাতি এমন উদ্ভট দাবী মেনে নিবে বলে আমার মনে হয়না। কারণ নীতির ফলাফল তখন কেবল শিক্ষক সম্প্রদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবেনা। একই রকম দাবী উঠতে থাকবে কুলি, মজুর, শ্রমিক, ডাক্তার, প্রকৌশলীএক কথায় শ্রমজীবি মানুষের প্রতিটি সেক্টর থেকেই। কারণ ইতোপূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, মানব সমাজের প্রতিটি ব্যক্তিই অসংখ্য মানুষের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ শ্রমের উপর নির্ভরশীল। ঠাণ্ডা মাথায় একবার ভেবে দেখুনতো, সমাজের প্রতিটি সেক্টর থেকে এরকম দাবী উঠতে থাকলে আমাদের সামগ্রিক জীবনে কী ধরনের বিপর্যয় নেমে আসবে ?

 

হয়তো তাদের কেউ বলে উঠবেন আমাদের কোম্পানী তো নিজেই স্বেচ্ছায় এ বিরামহীন মুনাফা দিতে রাজী হচ্ছে। যে মুনাফা দিবে সে রাজী থাকলে অন্য ব্যক্তির তাতে আপত্তির কী আছে? যুক্তিটি আপাতত নির্দোষ মনে হলেও বাস্তবে তা সাংঘাতিক আপত্তিকর। “কোম্পানী নিজেই মুনাফা দিচ্ছে”- কথাটি থেকে মনে হয় কোম্পানী তার তহবিল থেকেই এ মুনাফা দিচ্ছে। কিন্তু তা নয়। বাস্তবতা হলো, কিছু অবৈধ মুনাফালোভী অল্প শ্রমে অঢেল সম্পদের পাহাড় গড়ার উদ্দেশ্যে মানুষকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে এ অভিনব কৌশল উদ্ভাবন করেছে। তাদের স্বরূপ আমি আমার দ্বিতীয় প্রবন্ধে সবিস্তারে আলোচনা করেছি। এখানে তার পুনরাবৃত্তির আর প্রয়োজন নেই।

BLOG COMMENTS

উপরোক্ত প্রবন্ধ সোনার বাংলাদেশ ব্লগে প্রকাশ করার পর বাকরুদ্ধএম এন হাসান ছদ্মনামে দুজন ব্লগারের বিপরীতে আমি অন্তর্দৃষ্টি শিরোনামে যে জবাব দিয়েছি নিম্নে তা উল্লেখ করা হলঃ

২০ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ০৮:৫৫

বাকরুদ্ব লিখেছেন : আপনি অনেক কষ্ট করেছেন মনে হচ্ছে লেখাটি লেখার জন্য।কিন্তু কুরআনের আয়াতের ভুল ব্যখ্যা করেছেন বা সঠিক ব্যখ্যাটা আপনার লেখায় আসেনি।সুরা নজমের ৩৮/৩৯ নাম্বার আয়াত হচ্ছে আপনার আলোচনার ভিত্তি,এই আয়াতদ্বয়কে মিসকোট করেছেন তাই পুরো আলোচনাই ভিত্তিহীন।পোষ্টে সচিন্তিত মাইনাস দিলাম।

২০ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ০৯:২৮

অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : প্রিয় বাকরুদ্বঃ আপনি যদি মনে করেন, ঐ আয়াতটির সঠিক ব্যাখ্যা এ রকম নয় তাহলে “সঠিক ব্যাখ্যাটি” আমাদেরকে জানিয়ে কৃতার্থ করবেন আশা রাখি। তাছাড়া, চেইন পিরামিডাল কমিশনের বৈধতার ব্যাপারে আপনার কাছে কোন প্রমাণ বা যুক্তি থাকলে তাও জানানোর ব্যবস্থা করুন। আমি পরবর্তী পর্বে বিশেষজ্ঞদের মতামত উল্লেখ করতে যাচ্ছি। সেগুলোর সাথেও আপনার দ্বিমত থাকলে আপনার মতামত জানাতে কার্পন্য করবেন না। কোন কিছুকে ভুল/সঠিক বলে দিলেই দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। কেন ভুল/সঠিক – তা বিশ্লেষণের দায়িত্ব মন্তব্যকারীর উপরই বর্তায়। ধন্যবাদ।

২০ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ১০:০৫

বাকরুদ্ব লিখেছেন : এমএলএম ভুল কি শুদ্ধ সেই হিসেবে যাওয়ার আগে,আপনি যে আয়াতগুলোকে শ্রমের মুলনীতি হিসেবে গ্রহন করেছেন তার ব্যখ্যা জরুরী।
সুরা নজমের ৩৮ ও ৩৯ নাম্বার আয়াতকে ব্যখ্যা করতে হলে আমাদেরকে আরো কয়েকটা আয়াত পেছন থেকে শুরু করতে হবে,যেখান থেকে এই আয়াতের ক্রমধারা শুরু হয়েছে।

৩৩) হে নবী, তুমি কি সেই ব্যক্তিকে দেখেছো যে আল্লাহর পথ থেকে ফিরে গিয়েছে
৩৪) এবং সামান্য মাত্র দিয়ে ক্ষান্ত হয়েছে?(এই আয়াতের ব্যখ্যাটুকু তাফহিমুল কুরআন থেকে নেয়া হয়েছে)
উক্ত আয়াতদুটিতে কুরাইশদের বড় নেতাদের অন্যতম ওয়ালীদ ইবনে মুগীরার ব্যপারে রাসুলকে উদ্দেশ্য করে বলা হচ্ছে;

এখানে কুরাইশদের বড় নেতাদের অন্যতম ওয়ালীদ ইবনে মুগীরার প্রতি ইংগিত করা হয়েছে ইবনে জারীর তাবারী বর্ণনা করেছেন যে, ব্যক্তি প্রথমে রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দাওয়াত গ্রহণ করতে মনস্থির করে ফেলেছিল কিন্তু তার এক মুশরিক বন্ধু জানতে পারলো যে, সে মুসলমান হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছে সে তাকে বললো তুমি পিতৃধর্ম ত্যাগ করো না যদি তুমি আখেরাতের আযাবের ভয় পেয়ে থাকো তাহলে আমাকে এই পরিমাণ অর্থ দিয়ে দাও, তোমাদের পরিবর্তে আমি সেখানকার আযাব ভোগ করার দায়িত্ব গ্রহণ করছি ওয়ালিদ একথা মেনে নিল এবং আল্লাহর পথে পথে প্রায় এসে আবার ফিরে গেল কিন্তু সে তার মুশরিক বন্ধুকে যে পরিমাণ অর্থ দেবে বলে ওয়াদা করেছিল তার সামান্য মাত্র দিয়ে অবশিষ্ট অংশ বন্ধ করে দিল ঘটনার প্রতি ইংগিত করার উদ্দেশ্য ছিল মক্কার কাফেরদের একথা জানিয়ে দেয়া যে, আখেরাত সম্পর্কে নিরুদ্বেগ এবং দীনের তাৎপর্য সম্পর্কে অজ্ঞতা তাদেরকে কি ধরনের মূর্খতা নির্বুদ্ধিতার মধ্যে নিমগ্ন করে রেখেছে

তারপর,ক্রমধারায় ৩৮ ও ৩৯ নাম্বার আয়াতে এসে বলা হয়েছে;
৩৮) একথা যে, “কোন বোঝা বহনকারী অন্যের বোঝা বহন করবে না৷

আয়াত থেকে তিনটি বড় মূলনীতি পাওয়া যায় এক, প্রত্যেক ব্যক্তি নিজে তার কাজের জন্য নিজের দায়ী দুই, একজনের কাজের দায়দায়িত্ব অন্যের ওপর চাপিয়ে দেয়া যেতে পারে না তবে সেই কাজ সংঘটিত হওয়ার ব্যাপারে তার কোন ভূমিকা থাকলে ভিন্ন করা তিন, কেউ চাইলেও অন্য কারো কাজের দায়দায়িত্ব নিজে গ্রহণ করতে পারে না আর প্রকৃত অপরাধীকে কারণে ছেড়ে দেয়া যেতে পারে না যে, তার শাস্তি ভোগ করার জন্য অন্য কেউ এগিয়ে আসছে

৩৯) একথা যে, “মানুষ যে চেষ্টা সাধনা করে তা ছাড়া তার আর কিছুই প্রাপ্য নেই.

একথাটি থেকেও তিনটি মূলনীতি পাওয়া যায় এক, প্রত্যেক ব্যক্তি যা পরিণতি ভোগ করবে তা তার কৃতকর্মেরই ফল দুই, একজনের কর্মফল অন্যজন ভোগ করতে পারে না তবে কাজের পেছনে তার কোন ভূমিকা থাকলে তা ভিন্ন কথা তিন, চেষ্টাসাধনা ছাড়া কেউ কিছু লাভ করতে পারে না
কোন কোন ব্যক্তি তিনটি মূলনীতিকে ভুল পন্থায় অর্থনৈতিক ক্রিয়াকাণ্ডের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করে এরূপ সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, কোন ব্যক্তি নিজের কাষ্টার্জিত আয় () ছাড়া কোন কিছুর বৈধ মালিক হতে পারে নাকিন্তু একথা কুরআন মজীদেরই দেয়া কিছু সংখ্যক আইন নির্দেশের সাথে সাংঘর্ষিক উদাহরণ হিসেবে উত্তরাধিকার আইনের কথা বলা যেতে পারে আইন অনুসারে কোন ব্যক্তির পরিত্যক্ত সম্পদে বহু সংখ্যক লোক অংশ পায় এবং বৈধ উত্তরাধিকারী হিসেবে স্বীকৃত হয় কিন্তু উত্তরাধিকার হিসেবে প্রাপ্ত সম্পদ তার শ্রম দ্বারা অর্জিত নয় শত যুক্তি দেখিয়েও একজন দুগ্ধপোষ্য শিশু সম্পর্কে একথা প্রমাণ করা যাবে না যে, পিতার পরিত্যক্ত সম্পদের তার শ্রমের কোন ভূমিকা আছে অনুরূপভাবে যাকাত সাদকার বিধান অনুসারে শুধুমাত্র শরয়ী নৈতিক অধিকারের ভিত্তিতে একজনের অর্থসম্পদ অন্যেরা লাভ করে থাকে এভাবে তারা সম্পদের বৈধ মালিকানা লাভ করে কিন্তু সেই সম্পদ সৃষ্টির ব্যাপারে তার শ্রমের কেন অংশ থাকে না অতএব কুরআনের কেন একটি আয়াত নিয়ে বিচার –বিশ্লেষণ করে কুরআনের অন্যান্য শিক্ষার সাথে সাংঘর্ষিক কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা কুরআনের লক্ষ্য উদ্দেশ্যের সম্পূর্ণ পরিপন্থী

এইতো গেল তাফহিমুল কুরআনের ব্যখ্যা।এবার দেখি আধুনিক যুগের আরেকটি জনপ্রিয় কমেন্টারি,মোহাম্মদের আসাদের ব্যখ্যা:

that no bearer of burdens shall be made to bear another’s burden; (53:38)
This basic ethical law appears in the Qur’an five times – in 6:164, 17:15, 35:18, 39:7, as well as in the above instance, which is the oldest in the chronology of revelation. Its implication is threefold: firstly, it expresses a categorical rejection of the Christian doctrine of the “original sin” with which every human being is allegedly burdened from birth; secondly, it refutes the idea that a person’s sins could be “atoned for” by a saint’s or a prophet’s redemptive sacrifice (as evidenced, for instance, in the Christian doctrine of Jesus’ vicarious atonement for mankind’s sinfulness, or in the earlier, Persian doctrine of man’s vicarious redemption by Mithras); and, thirdly, it denies, by implication, the possibility of any “mediation” between the sinner and God.and that nought shall be accounted unto man but what he is striving for;(53:39)

the basic, extremely well-authenticated saying of the Prophet, “Actions will be [judged] only according to the conscious intentions [which prompted them]; and unto everyone will be accounted only what he consciously intended”, i.e., while doing whatever he did. This Tradition is quoted by Bukhari in seven places the first one as a kind of introduction to his Sahi~ – as well as by Muslim, Tirmidhi, Abn Da’ud, Nasa’i (in four places), Ibn Majah, Ibn Hanbal, and several other compilations. In this connection it is to be noted that in the ethics of the Qur’an, the term “action” (‘amal) comprises also a deliberate omission of actions, whether good or bad, as well as a deliberate voicing of beliefs, both righteous and sinful: in short, everything that man consciously aims at and expresses by word or deed.(Page: 1109-1110)
তাফসীরে ইবনে কাসীরেও সিমিলার ব্যখ্যা এসেছে,যেখানে ঐ আয়াতগুলো পাপ-পুন্যের ব্যখ্যায় ব্যবহার করা হয়েছে,কোন ভাবেই ব্যবসা বা শ্রমের নীতির জন্য ব্যবহার করা হয়নি।

ফাইনালি, আপনি বরং একজন এমএলএম কে কেন জায়েজ বলেছে তার বইয়ের কাউন্টার করতে চেয়েছেন এবং তা করতে যেয়ে কুরআনের আয়াতের মিসকোট এবং অপব্যখ্যা করেছেন,হয়তবা মনের অজান্তেই অথবা অন্য কারো লেখাকে কপি পেষ্ট করতে যেয়ে। এমএলএম কে নাজায়েজ বলার পক্ষে আরো অনেক যুক্তি থাকতে পারে কিন্তু আপাতত আপনার যুক্তি ধোপে টিকলনা।
আমি মুল ইস্যতেই আলোচনা রাখলাম,সাইড ইস্যুতে আলোচনা অদরকারী।
ধন্যবাদ

২১ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ১২:৩৪
অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : আপনার দীর্ঘ জবাবের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন। তবে এ প্রসঙ্গে কয়েকটি কথা বলা জরুরী মনে করি। আশা করি আপনার জ্ঞানগর্ভ মতামত দিয়ে আমাকে সাহায্য করবেন।

প্রথমত, আপনি যে সকল তাফসীর গ্রন্থের রেফারেন্স দিয়েছেন এ আয়াতের ভিত্তিতে ব্যাখ্যা দেয়ার পূর্বে আমি সেসব তাফসীরের সংশ্লিষ্ট অংশগুলো গভীর মনোযোগ সহকারে পড়ে নিয়েছি। বিষয়টি এমন নয় যে, আমি কারো কাছ থেকে কপি করে পেস্ট করে দিয়েছি।

দ্বিতীয়ত, তাফসীর শাস্ত্রের ক্ষেত্রে একটি কথা মনে রাখা দরকার। তা হল, কোন আয়াতের বিশেষ আংগিকের ব্যাখ্যাকে নিছক এ কারণেই অগ্রহনযোগ্য বলে উড়িয়ে দেয়া যেতে পারে না যে, এ বিশেষ দিকটি অন্য কোন তাফসীর গ্রন্থে লেখা হয় নি। তাফসীর শাস্ত্র মূলত একটি চলমান প্রক্রিয়া। প্রতিনিয়ত নতুন তাফসীর লেখা হচ্ছে। এবং প্রায় প্রতিটি নতুন তাফসীরেই নতুন আঙ্গিকে অসংখ্য আয়াতের তাফসীর পেশ করা হয়েছে। উদাহরনস্বরূপ, আপনি যে দু’টি তাফসীর গ্রন্থের কথা শুরুর দিকে উল্লেখ করেছেন (অর্থাৎ মাওলানা মওদুদী’র (রঃ) তাফহীমুল কুরআন ও মুহাম্মদ আসাদের The Message of the Quran) এগুলোর কথাই ধরুন। এসব তাফসীরগ্রন্থে অসংখ্য আয়াতের এমন আঙ্গিকে তাফসীর পেশ করা হয়েছে যা পূর্বের তাফসীর গ্রন্থসমূহে আলোচিত হয় নি। নিছক এ অজুহাত তুলে এ তাফসীরগ্রন্থসমূহের ঐ বিশেষ অংশসমূহকে প্রত্যাখ্যান করা হলে তা হবে এক অন্যায়। (আপনি নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, ঠিক এ ধরণের ঠুনকো অজুহাতে কিছু লোক তাফহীমুল কুরআনকে কুরআনের অপব্যাখ্যা আখ্যা দিয়ে বাদ দেয়ার চেষ্টা করছে এবং সৌদি কর্তৃপক্ষ আসাদের ব্যাখ্যাকে সোদী আরবে একপ্রকার নিষিদ্ধ করে রেখেছে।)

তৃতীয়ত, আমি মনে করি কুরআনের একটি আয়াতের ব্যাখ্যা অনেকদূর পর্যন্ত সম্প্রসারিত হতে পারে। সে সম্প্রসারিত ব্যাখ্যাটি ঠিক তখনি পরিত্যায্য হবে যখন তা হবে কুরআনের অপরাপর আয়াত বা সুন্নাতে রাসূল (সাঃ) থেকে উৎসারিত বিধানের বিপরীত।

চতুর্থত, মাওলানা মওদুদী (রঃ) যেসব বিষয় উল্লেখ করেছেন আমার প্রবন্ধে তার যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে লিখেছি, “এ দু’টি আয়াত অনুযায়ী প্রত্যেক ব্যক্তির আয় ও দায় (income and liability) সবসময় ব্যক্তিগত পর্যায়ে সীমাবদ্ধ। তবে, শরীয়ত প্রণেতা নিজেই অন্যান্য আয়াত ও হাদীসে এ সাধারণ নীতিটির (general principle) কয়েকটি ব্যতিক্রম (exceptions) উল্লেখ করে দিয়েছেন। তন্মধ্যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ধনী লোকদের সম্পদে অভাবী মানুষের অধিকার এবং আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রে সদকায়ে জারিয়া, গোনাহে জারিয়া ও জীবিত লোক কর্তৃক কোন ভালো কাজের সওয়াব মৃত ব্যক্তির নিকট পাঠানো (ঈসালে সওয়াব) অন্যতম। এখানে উল্লেখ্য যে, শরীয়ত প্রণেতা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে সকল ব্যতিক্রম উল্লেখ করেছেন সেগুলো বাদ দিলে সুরা নাজমের ৩৯ নং আয়াতটি ইসলামের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা ও শ্রমনীতির একটি প্রতিষ্ঠিত নীতি (established rule) ।”

অর্থাৎ, ইসলামী শরীয়ত যে সকল জায়গায় শ্রম ছাড়াই অধিকারের স্বীকৃতি দিয়েছে সেগুলোর সাথে এ আয়াতে উল্লেখিত নীতির কোন সংঘর্ষ নেই। কারণ, সেগুলো আয়াতের ব্যাতিক্রমধর্মী উদাহরন। আর এটি আইন বিজ্ঞানের (jurisprudence) একটি স্বতঃসিদ্ধ নীতি যে, আইন প্রণেতা আইন দেয়ার পাশাপাশি ব্যতিক্রম (exception)ও বলে দেয়ার অধিকার রাখেন।

পঞ্চমত, এ আয়াতের শব্দ প্রয়োগ অত্যন্ত ব্যাপক। আমি যে ব্যাখ্যা দিয়েছি তার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে এ আয়াতের ব্যাপকতার মধ্যে। এ কোন আজগুবী আবিষ্কার নয়।

সর্বশেষ, আমার ব্যখ্যাকে প্রত্যাখ্যান করতে চাইলে কুরআনের কোন আয়াত কিংবা হাদীসের রেফারেন্সে দেখাতে হবে যে আমার ব্যাখ্যাটি তার সাথে কীভাবে সাংঘর্ষিক। অযথা “অন্য কোন তাফসীরে এভাবে বলা হয়নি” — নিছক এ কারণে প্রত্যাখ্যানের চেষ্টা বুদ্ধিবৃত্তির (intellect) প্রতি নিঃসন্দেহে যুলুমের নামান্তর।

২১ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ০১:৫৭

এম এন হাসান লিখেছেন : ধন্যবাদ আপনাকে এই বিষয়ে একটি ভাল আলোচনা পেশ করার জন্য।তবে বাকরুদ্ব’এর মন্তব্যের জবাবে বলা আপনার কথার সাথে পুরোপুরি একমত হতে পারলাম না।

এমএলএম হালাল বা হারাম হবার ব্যপারে বিভিন্ন যুক্তি রয়েছে,সেগুলো নিয়ে আলোচনা হতে পারে।কিন্তু আপনি যেই আয়াতগুলো বেইস ধরে এমএলএম কে নাজায়েজ বলেছেন তা সঠিক বলে মনে হচ্ছেনা।তাফসীর কারক যিনিই হউন,তার ব্যাখ্যাটা জরুরি।উপরে তিনটি তাফসীর থেকে রেফারেন্স দেয়া হয়েছে ঐ আয়াতগুলোর ব্যাপারে,এরপরও সন্দেহ থাকা উচিত কিনা ভেবে দেখা দরকার।আধুনিক দুটি তাফসীর বাদ দিলেও তাফসীর ইবনে কাসির তো ক্লাসিকাল তাফসীর,তাই না?

নিচে এম এল এম এর পক্ষে বিপক্ষে আরো লেখার কয়েকটা লিংক দিলাম,আপনার কাজে আসবে আশাকরি।

Fatwa from the Standing Committee, সৌদি আরব। এখানে এটাকে না জায়েজ বলা হয়েছে।

আবার নিচের লিংকে পুরো ইসলামিক মডেল অফ এম এল এম নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

Islamic Model of Multi-level Marketing (MLM)

নিচে মালয়েশিয়ার এক শায়খ,পক্ষে বিপক্ষে আলোচনা করেছেন;
Multi Level Marketing : Shariah View

ওনার কনক্লুশানটা আমার পছন্দ হয়েছে;
I am aware that rulings regarding MLM are not yet concluded and are still open for discussions. Even Syeikh Dr Abd Sattar Abu Ghuddah,(অন্য কোন আলেম সম্ভবত) during our discussion, pointed out that the MLM issue is still new to him. It is difficult to find writings of Middle Eastern scholars regarding MLM because MLM has yet to enter the Arab countries massively. Therefore, it is the responsibility of the South East Asian scholars to elaborate on this topic to provide the general public with guidelines about Shariah issues in MLM. This short writing is only a preliminary opinion intended to remind all of us about the ambiguity or doubtness that is embedded in MLM schemes. Readers should not be annoyed and irritated by the article. It is only a reminder for those who are concerned about the legality of their income and a forewarning for those who ponder upon the infinite life after death.
এই বিষয় নিয়ে আরো বিস্তারিত আলোচনার সুযোগ রয়েছে।পিরামিড স্কিম আর এমএলএম কে এক করে দেখে অতি সহজে হারাম উপসংহারে পৌছা আমার মতে যুক্তিযুক্ত হবেনা।
ধন্যবাদ

২১ ডিসেম্বর ২০১০; দুপুর ০১:৪৭
অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : সুপ্রিয় এম এন হাসান! আপনার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। আপনি যে সকল লিঙ্ক উল্লেখ করেছেন উক্ত প্রবন্ধ লিখার আগে আমি সেসব লিঙ্ক সহ অসংখ্য প্রবন্ধ-নিবন্ধ ও পুস্তিকা অধ্যয়ন করে নিয়েছি। তারপরও আপনার হেল্পিং মাইন্ডের জন্য আরেকবার ধন্যবাদ।

আপনার সাথে আমার আলোচ্য বিষয় এখন দু’টি; (১) তাফসীরের বৈশিষ্ট্য ও (২) চেইন পিরামিডাল কমিশনের বৈধতা।

(১) তাফসীরের বৈশিষ্টের ব্যাপারে জনাব “বাকরুদ্ধ” ও আপনি কেউই এ বিষয়টির জবাব দিচ্ছেন না যে, “অন্যান্য তাফসীর গ্রন্থে উল্লেখ নেই – নিছক এ কারণেই কেন একটি ব্যাখ্যা অগ্রহনযোগ্য হবে?” আপনাদের কাছে আপনাদের মতের স্বপক্ষে কুরআন-সুন্নাহ ও সুস্থ বিবেকের কোন প্রমাণ থাকলে তা তুলে ধরুন। নতুবা এমন নীতিকে আমি সুস্পষ্টভাবেই ভ্রান্ত মনে করি। কারণ, কোন যুগের মুফাসসিরের পক্ষেই সমস্ত আঙ্গিকে কুরআনের সব আয়াতের ব্যাখ্যা দিয়ে দেয়া সম্ভবপর নয়। আমরা আমাদের পূর্বসূরীদেরকে হৃদয়ের অন্তস্থল থেকেই সর্বোচ্চ মাত্রার শ্রদ্ধা দিয়ে সম্মান করি। কারণ, তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল থেকে আমরা দ্বীনের প্রগাঢ় জ্ঞান অর্জন করার সুযোগ পাই। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, তারা সব বিষয়ের সমাধান করে চলে গেছেন এবং এখন আর নতুন কিছুই বলা যাবে না। একবার গভীরভাবে চিন্তা করে দেখুন, এ কথাকে একবার মেনে নিলে ইবনে কাসীরের পরবর্তী অধিকাংশ তাফসীরগ্রন্থকে নিছক এ কারণেই বাদ দিতে হবে যে এগুলোতে এমন অনেক কথা বলা আছে যা ইবনে কাসীর ও তাঁর পূর্বেকার তাফসীর গ্রন্থসমূহে নেই।

আমি আবারো বলছি, কুরআনের কোন আয়াতের কোন ব্যাখ্যাকে অগ্রহনযোগ্য বলার জন্য অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে যে, ঐ ব্যাখ্যাটি কুরআনের অন্যান্য আয়াত ও হাদীস থেকে উৎসারিত বিধি বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক। আমার এ ব্যাখ্যাটি কীভাবে কুরআনের অন্যান্য আয়াত ও হাদীস থেকে উৎসারিত বিধি বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক তা প্রমাণ করার দায়িত্ব প্রত্যাখ্যানকারীকেই দেয়া উচিত। নিছক ভাবাবেগের অনুবর্তী হয়ে ব্যাখ্যা বিশ্লেষণের এ রীতিকে প্রত্যাখ্যান করা কিছুতেই সঠিক হতে পারে না।

তাছাড়া, ইবনে কাসীর বিষয়টির কেবল আধ্যাত্মিক দিকটি আলোচনা করেছেন; তিনি কখনো এ কথা লিখেননি যে, এ আয়াত কোন ক্রমেই আমাদের অর্থনৈতিক জীবনে প্রযোজ্য হবে না। এমনটা লিখলে তাকেই বরং প্রমাণ করতে হতো যে, কীসের ভিত্তিতে তিনি এ সাধারণ (عام) আয়াতটিকে বিশেষায়িত (خاص) করে নিচ্ছেন।

তবে মাওলানা মওদুদী যে কারণে এ আয়াতটিকে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে প্রয়োগ করতে চান নি, আমি আমার মূল প্রবন্ধে (এবং “বাকরুদ্ধের” জবাবে) তা সবিস্তারে আলোচনা করেছি। ঐ বিশ্লেষণের মাধ্যমে মাওলানা মওদুদীর উদবেগের সমাধান করা হয়েছে।

(২) মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের প্রফিট ডিস্ট্রিবিউশন স্কীমটি কোন ক্রমেই সাধারণ কমিশনের মত নয়। এ কমিশন পদ্ধতির স্বরূপ বর্ণনা করতে গিয়ে কেউ লিখেছেন “চেইন পিরামিডাল কমিশন” কেউ বলেছেন “কম্পাউন্ড ব্রোকারেজ”। আমি নিজে অবশ্য এক বিশেষ ধরণের পরিভাষা ব্যবহার করি। আর তা হলো Multilevel Effect of Labour বা শ্রমের বহুস্তর প্রতিক্রিয়া. এসব পরিভাষা প্রয়োগে আপনার দ্বিমত থাকলে তা অত্যন্ত স্বাভাবিক; আপনি ইচ্ছে করলে অন্য কোন পরিভাষা সৃষ্টি করতে পারেন। কিন্তু, পরিভাষা যাই হোক না কেন এগুলোর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য একই। অর্থাৎ এ প্রফিট ডিস্ট্রিবিউশন স্কীমটি কোন ক্রমেই সাধারণ কমিশনের মত নয়।

পরিশেষে, মনে রাখতে হবে এ প্রবন্ধে বহুমুখী বিষয় আলোচিত হয়েছে যেগুলোর কেন্দ্রীয় আলোচ্য বিষয় হচ্ছে Multilevel Effect of Labour বা শ্রমের বহুস্তর প্রতিক্রিয়া। আমি এখানে দেখানোর চেষ্টা করেছি যে, Multilevel Effect of Labour প্রকৃতপক্ষে শ্রমের “প্রকৃতি-বিরোধী”। সুরা নাজমের ঐ আয়াতটির প্রেক্ষিতে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে যে Multilevel Effect of Labour ইসলামের প্রাণসত্তার বিপরীত।
আরেকটি অনুরোধ জানিয়ে আমার জবাবী মন্তব্য শেষ করবো। তা হল, আপনাকে যদি কেউ প্রশ্ন করে Multilevel Effect of Labour বা শ্রমের বহুস্তর প্রতিক্রিয়া ইসলামসম্মত কি না। আপনার জবাব কী? যদি হ্যাঁ বাচক হয় তাহলে জিজ্ঞাস্য হচ্ছে শ্রমের এই প্রকৃতি-বিরুদ্ধ ও অস্বাভাবিক মাজেজা কোন যুক্তিতে বৈধ? আর প্রশ্নটির জবাব নেতিবাচক হলে তার দলীল-প্রমাণ উপস্থাপন করুন

Multilevel Effect of Labour বা শ্রমের বহুস্তর প্রতিক্রিয়ার ইস্যুটি কোন ছেলেখেলা নয়; নয় কোন আমুদে বিতর্কের খোরাক। ভোগবাদী অর্থনীতি ও শোষণমূলক শ্রমনীতির এই জটিল যুগে এ ইস্যুটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, বিংশ শতকের শুরু থেকে ইসলামী রাষ্ট্রতত্ত্বের যে ব্যাপক পুনর্জাগরণবাদী কার্যক্রম শুরু হয়েছে তারই দাবী হিসেবে এ ইস্যুটি আশু সমাধানযোগ্য। “আগে ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হোক, পরে সমাধান করবো” এমন চিন্তা কেবল নীতিগত ভুলই নয়; পরিণতির দিক দিয়েও তা অত্যন্ত বিপজ্জনক।
অশেষ ধন্যবাদ।
jiarht@gmail.com

২২ ডিসেম্বর ২০১০; সকাল ০৬:৪৫

এম এন হাসান লিখেছেন : ভাই,আপনি মুল আলোচনার বাহিরে চলে যাচ্ছেন কেন?তাফসীর কারক বা তাফসীরের বৈশিষ্ট আলোচনার বিষয় কি?
বিষয় ছিল এমএলএম এবং শ্রমনীতি।
আপাতত এমএলএম বাদ কেননা গোড়ায় গলদ।শ্রমনীতির ক্ষেত্রে সুরা নজমের ৩৮ ও ৩৯নাম্বার আয়াতের এপ্লিকেশন কিভাবে করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করুন।আমিও বাকরুদ্ধের সাথে একমত যে,ঐদুটি আয়াত কোনভাবেই শ্রমের সাথে সম্পর্কিত নয়,আমি নিজে আজ দেখার চেষ্টা করেছি,আরো কয়েকজন আলেমের সাথেও কথা বলেছি।আপনি কিভাবে উক্ত দুটি আয়াতকে ইসলামি শ্রমনীতির ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন যেখানে উক্ত দুটি আয়াত সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রেক্ষাপট ও অর্থে নাজিল হয়েছে।শরীয়ত প্রণেতা বলেছেন বলতে কি বঝাতে চান?এই শরীয়ত প্রণেতাটা কে?
আপনি কোন তাফসীর থেকে এই ব্যখ্যা নিয়েছেন তা উল্লেখ করুন।
আমি আবারো বলছি,এমএলএম কে নাজায়েজ বলার জন্য আরো অনেক কারন রয়েছে কিন্তু ঐ দুটি আয়াতকে কেন অযথা ব্যবহার মিসকোট করতে হবে সেটা বুঝে আসছেনা।বুঝিয়ে বলেন প্লিজ।
ধন্যবাদ

২২ ডিসেম্বর ২০১০; দুপুর ১২:১৩

অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : এ কোন্ sickness – তা আমার বুঝে আসে না। আপনি প্রতিবারই তাফসীর সংক্রান্ত এক ডেয়ারিং মূলনীতি বর্ণনা করে চলেছেন অথচ আপনার মতের স্বপক্ষে না আছে কুরআন-সুন্নাহর কোন টেক্সট, আর না আছে কোন সুস্থ যুক্তি।

আপনি প্রথম মন্তব্যে বললেন, “তাফসীর কারক যিনিই হউন,তার ব্যাখ্যাটা জরুরি।উপরে তিনটি তাফসীর থেকে রেফারেন্স দেয়া হয়েছে ঐ আয়াতগুলোর ব্যাপারে,এরপরও সন্দেহ থাকা উচিত কিনা ভেবে দেখা দরকার।আধুনিক দুটি তাফসীর বাদ দিলেও তাফসীর ইবনে কাসির তো ক্লাসিকাল তাফসীর,তাই না? ” তাফসীর ইবনে কাসির তো ক্লাসিকাল তাফসীর – এর মাধ্যমে কী বুঝাতে চেয়েছেন তা আমার কাছে স্পষ্ট নয়। তবে এতোটুকুতো পরিস্কার বুঝা যাচ্ছে যে, যেহেতু ইবনে কাসির বিষয়টি এভাবে তুলে ধরেননি সেহেতু আয়াতটির এরূপ ব্যাখ্যা কিছুতেই হতে পারে না। আমি মনে করি, এরূপ কোন নীতির স্বপক্ষে কুরআন-সুন্নাহর কোন প্রমাণ পেশ করার সাধ্য কারো নেই।

আপনার যুক্তিটি পুরোপুরি দাঁড়িয়ে আছে উসুলে তাফসীরের উপর। অথচ আমি যখন উসুলে তাফসীর নিয়ে সবিস্তারে আলোচনা করে দেখিয়ে দিলাম যে, আপনার এই কল্পিত মতবাদের পক্ষে না আছে কুরআন-সুন্নাহর কোন টেক্সট আর না আছে কোন সুস্থ যুক্তি। এর জবাবে আপনি বলতে চাইলেন, “ভাই,আপনি মুল আলোচনার বাহিরে চলে যাচ্ছেন কেন?”

তারপর আপনি বলেছেন, “ঐদুটি আয়াত কোনভাবেই শ্রমের সাথে সম্পর্কিত নয়”। আপনার এ ব্যাখ্যার পেছনে একটি যুক্তি উপস্থাপন করেছেন, “আপনি কিভাবে উক্ত দুটি আয়াতকে ইসলামি শ্রমনীতির ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন যেখানে উক্ত দুটি আয়াত সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রেক্ষাপট ও অর্থে নাজিল হয়েছে।” আপনার যুক্তির সারকথা হল, যেহেতু এ আয়াত এক বিশেষ প্রেক্ষাপটে নাযিল হয়েছিল সেহেতু এর অর্থ ঠিক সেই প্রেক্ষাপটেই কেবল প্রযোজ্য। আমি মনে করি, এ যুক্তি ঠিক নয়। এর স্বপক্ষে আমি কুরআন থেকে অসংখ্য প্রমাণ দিতে সক্ষম। উদাহরণস্বরূপ, ইসলামে একাধিক বিবাহের অনুমতি সংক্রান্ত আয়াত
و ان خفتم ان لا تقسطوا فى اليتامى فانكحوا ما طاب لكم من النساء مثنى و ثلاث و رباع
কিছু লোক এভাবে যুক্তি দিচ্ছে যে, যেহেতু এ আয়াত উহুদ যুদ্ধোত্তর ইয়াতীম শিশুদের সমস্যা সমাধানের বিশেষ প্রেক্ষাপটে নাযিল হয়েছে সেহেতু কেউ একাধিক বিবাহ করতে চাইলে তাকে অবশ্যই কোন একটি যুদ্ধের পরেই করতে হবে, কিছুতেই যুদ্ধের আগে একাধিক বিবাহ করতে পারবে না। কারণ, একাধিক বিবাহের অনুমতি কেবল যুদ্ধের পরের অবস্থার সমাধানের জন্য নাযিল হয়েছিল, যুদ্ধের আগের অবস্থাতে প্রযোজ্য হওয়ার জন্য নয়। এখানেই শেষ নয়। তারা আরো শর্তারোপ করছে যে, যেহেতু কুরআনের আয়াতের মধ্যেই ইয়াতীম শিশুর উল্লেখ আছে সেহেতু কেউ একাধিক বিয়ে করতে চাইলে তাকে অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে যে সেও ইয়াতীম শিশুর সমস্যা সমাধান করছে; অন্যথায় সে একাদিক বিবাহের বৈধতা পাবে না। [লক্ষ্য করে দেখুন, “নিছক বিশেষ প্রেক্ষাপটে নাযিল হওয়ার প্রেক্ষিতে কোন আয়াতের ব্যাখ্যা সীমাবদ্ধ রাখা”র নীতির দৃষ্টিতে এদের যুক্তির ভিত্তি আপনার তুলনায় অনেক দৃঢ়। কারণ, তাদের শর্তাবলীর উপস্থিতি খোদ কুরআনের শব্দাবলীতেই রয়েছে। পক্ষান্তরে, আপনার শর্ত (অর্থাৎ, নাজমের আয়াত কেবল সওয়াব-গুনাহের ক্ষেত্রেই কেবল প্রযোজ্য হবে, কিছুতেই অর্থ ও শ্রম দর্শনে আসবে না) কুরআনের শব্দাবলীতে নেই; নিছক প্রেক্ষাপটের দিকে তাকিয়ে চালিয়ে দিয়েছেন কেবল]

তারপরও বহু বিবাহ সম্পর্কে ঐসব মহোদয়ের শর্তারোপকে আমরা পূর্ণ দৃঢ়তার সাথে বাতিল বলে ঘোষণা করি। কারণ, এ আয়াত নাযিল হওয়ার পরে রাসুল (সাঃ) তাঁর কোন বক্তব্যের মাধ্যমে সেসব শর্তের উল্লেখ করেন নি; বরং তাঁর কার্যাবলী ও মৌন সমর্থনের মাধ্যমে ঐ সকল শর্তকে বাতিল করে দিয়েছেন। অর্থাৎ, ইয়াতীম শিশুর সমস্যা জড়িত থাকা ছাড়াই সাহাবায়ে কেরাম একাধিক বিয়ে করেছিলেন এবং রাসুল (সাঃ) সেখানে কোন রূপ বাধা বা শর্তারোপ করেন নি।

এই দীর্ঘ (হয়তো irritatingও বটে) আলোচনার মাধ্যমে আমি দেখানোর চেষ্টা করলাম যে, কুরআনের যে আয়াত যে প্রেক্ষাপটে নাযিল হয়েছিল, পরবর্তীতে প্রয়োগের জন্য সবসময় সে প্রক্ষাপটের উপস্থিতির প্রয়োজন পড়ে না। মাঝে মধ্যে এরূপ প্রেক্ষাপটের গো ধরলে রাসুল (সাঃ) ও সাহাবায়ে কেরামের আমল তাকে সজোরে প্রত্যাখ্যান করে।

এখন প্রশ্ন দেখা দেয়, কুরআনের আয়াত যে প্রেক্ষাপটে নাযিল হয় সেই প্রেক্ষাপটের আইনগত মর্যাদা কী? এর উত্তর হল, প্রেক্ষাপটের ব্যাপারে সার্বজনীন কোন রুল নেই। অর্থাৎ, প্রত্যেকটি মুহকাম আয়াতের ক্ষেত্রেই আলাদাভাবে দেখতে হবে যে, ঐ প্রেক্ষাপট একটি শর্তরূপে গন্য হবে কি না। এ ক্ষেত্রে কুরআনের অপরাপর আয়াত, সুন্নাহ ও আছার থেকে আমরা পরিষ্কার ধারণা লাভ করতে পারি।

এবার দৃষ্টি দিন নাজমের ৩৮ ও ৩৯ নং আয়াতের দিকে। আয়াতদ্বয়ের মধ্যে এমন কোন শব্দও নেই যা দ্ব্যার্থহীভাবে বলে দেয় যে, “এ আয়াত কেবল সওয়াব ও গুনাহের ক্ষেত্রেই কেবল প্রযোজ্য হবে; সাবধান অন্য কোথাও প্রয়োগ করার চেষ্টা করো না”।

আমাদের ফকীহদের কথাই ধরুন। তারা এ আয়াতকে সওয়াব-গুনাহে সীমাবদ্ধ না রেখে ফৌজদারী আইনেও (criminal law / الحدود و الجنايات) নিয়ে এসেছেন। এরই ভিত্তিতে পৃথিবীর প্রত্যেকটি সভ্য জাতির আইনবিজ্ঞানে vicarious liability বা পরার্থ দায় বিষয়ক স্থায়ী মূলনীতি হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে যে, কোন ব্যক্তির অপরাধের দায়ভার অন্য কেউ ইচ্ছে করলেও নিতে পারবে না। অপরাধীকেই আইন ভঙ্গের শাস্তি ভোগ করতে হবে। ফিকহের বইগুলো খুলে দেখুন, আমাদের ফকীহগন এ আয়াতকে কত ব্যাপকভাবে criminal jurisprudence এ প্রয়োগ করেছেন।

আমি আগেই বলেছি, কুরআন হচ্ছে জ্ঞানের এক অফুরন্ত ভাণ্ডার। এর আয়াতগুলো বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই elastic (স্থিতিস্থাপক); নিছক এক জায়গায় এর প্রয়োগ সীমিত থাকে না। তবে অবশ্যই এ প্রকার সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও আছারের প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। এগুলোকে লংঘন করে এমন কোন স্থিতিস্থাপক ব্যাখ্যাই গ্রহনযোগ্য হবে না। আমি যেভাবে এ আয়াতের ব্যাখ্যাকে সম্প্রসারিত করেছি তাতে কুরআন-সুন্নাহ ও আছারের কোন নীতির লংঘন হয়ে থাকলে তা ধরিয়ে দিন।
আপনি জানতে চেয়েছেন, “শরীয়ত প্রণেতা বলেছেন বলতে কি বঝাতে চান?এই শরীয়ত প্রণেতাটা কে? ” এর সহজ উত্তর হচ্ছে মুসলিম হিসেবে আল্লাহ ও রাসুল (সাঃ) কে ছাড়া আমরা আর কোন legislator বা শরীয়ত প্রণেতার কনসেপ্টই স্বীকার করি না।

রয়ে গেল আপনার সর্বশেষ প্রশ্ন, “আপনি কোন তাফসীর থেকে এই ব্যখ্যা নিয়েছেন”। – আমি কোন বিশেষ তাফসীর গ্রন্থ বা কোন ব্যক্তি বিশেষের মতবাদ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এ ব্যাখ্যা লিখি নি। কুরআন, সুন্নাহ, আছার, ফিকহ, আধুনিক আইন, অর্থ ও শ্রমদর্শন ও আধুনিক মানুষের সমস্যাদি স্টাডি করে আল্লাহ প্রদত্ত যৌক্তিক চিন্তাশক্তি (rational thinking power) প্রয়োগ করে আমি এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি। কোন ব্যাখ্যাকে বাতিল বলে গন্য করার জন্য কুরআন ও সুন্নাহ ব্যতিরেকে অন্য কোন মানদণ্ডকে আমরা স্বীকারই করি না।

অসংখ্য ধন্যবাদ।
jiarht@gmail.com

২৩ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ১২:০৫

এম এন হাসান লিখেছেন : মাল্টি লেভেল মার্কেটিং : বৈধতার সংকট পোষ্টে মাওলানা মওদুদী ও মুহাম্মদ আসাদ চষে এসে,এখন বলছেন,

আমি কোন বিশেষ তাফসীর গ্রন্থ বা কোন ব্যক্তি বিশেষের মতবাদ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ব্যাখ্যা লিখি নি কুরআন, সুন্নাহ, আছার, ফিকহ, আধুনিক আইন, অর্থ শ্রমদর্শন আধুনিক মানুষের সমস্যাদি স্টাডি করে আল্লাহ প্রদত্ত যৌক্তিক চিন্তাশক্তি (rational thinking power) প্রয়োগ করে আমি সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি কোন ব্যাখ্যাকে বাতিল বলে গন্য করার জন্য কুরআন সুন্নাহ ব্যতিরেকে অন্য কোন মানদণ্ডকে আমরা স্বীকারই করি না

এনিওয়ে, ঠিক এই বিষয়টাই জানতে চাচ্ছিলাম।আমার নিকটস্থ মসজিদের ইমামও জানতে চাচ্ছিলেন আপনি যুগের নতুন কোন মুজাদ্দিদ কিনা।
আমার উত্তর পেয়ে গেছি। এই ব্লগে ইজতিহাদ করার মত লোক আছে,এই তথ্যটাই জানতাম না।
সাধারনত কুরআন-হাদীসের বিষয় নিয়ে আমি “ইসলামিষ্ট”দের সাথে তর্কে লিপ্ত হইনা কিন্তু আপনার এখানে জড়িয়ে গেলাম।
ধন্যবাদ আপনার প্রচেষ্টার জন্য।

২৩ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ০২:১৩
অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : আপনি লিখেছেন, “মাল্টি লেভেল মার্কেটিং : বৈধতার সংকট পোষ্টে মাওলানা মওদুদী ও মুহাম্মদ আসাদ চষে এসে,এখন বলছেন …..” আপনার বক্তব্য থেকে মনে হয় যে, আমি উক্ত দু’জন মুফাসসীর দ্বারা প্রভাবিত হয়ে “মাল্টি লেভেল মার্কেটিং : বৈধতার সংকট” প্রবন্ধ লিখেছি, আর এখন কিনা বলছি আমি কারোদ্বারা প্রভাবিত হয় নি। আপনি যদি এমনটিই বুঝে থাকেন তাহলে এর দায় দায়িত্ব আপনারই। নতুবা খোলা মন নিয়ে ঐ প্রবন্ধ পাঠ করলে পরিস্কার ধরতে পারতেন যে, ঐ প্রবন্ধে নিছক ঐ দুই ব্যক্তি নয় অসংখ্য পণ্ডিত ব্যক্তির উদ্ধৃতি দিয়েছি; অথচ তাদের কাছ থেকেই আমি আমার মূল থিম গ্রহণ করি নি। কারণ, আমরা আমাদের শ্রদ্ধেয় মনীষীদের যথাযথ সম্মান করি, কিন্তু কারো পুজা করার রীতিতে আমরা বিশ্বাসী নই। অতএব, আমার বক্তব্যে আপনি যে স্ববিরোধীতার ইঙ্গিত দেয়ার চেষ্টা করেছেন তা আপনার অসতর্ক অধ্যয়নের ফল।

যা হোক, জানতে পারলাম যে তাজদীদ ও ইজতিহাদ বিষয়ে আপনি ও আপনার পাশের মসজিদের ইমাম বিস্মিত হয়েছেন। আসলে আমাদের দেশে তাজদীদ, ইজতিহাদ, তাফাক্কুহ – এ শব্দগুলোর প্রকৃত অর্থ না জানার কারণে কিছু লোকের মধ্যে এগুলো ভীতিকর শব্দ মনে হচ্ছে। আসলে আল্লাহর দ্বীনের সার্বিক বিজয় কোন ব্যক্তির একক অবদানের দ্বারা কখনো সম্ভব নয়। অতএব, যে বা যারাই কুরআন-সুন্নাহর অনুসারী হয়ে আল্লাহর দ্বীনের সার্বিক বিজয়ের জন্য চেষ্টা সাধনা করে থাকে, স্বাভাবিক অর্থে এরা সবাই তাজদীদের কাছে লিপ্ত। দুনিয়ার লোক তাকে মুজতাহিদ কিংবা জাহিল, অথবা মুজাদ্দিদ কিংবা পথভ্রষ্ট – যা ই বলুক না কেন, প্রত্যেকে তার অবদান অনুযায়ী আল্লাহর কাছে বিনিময়ের অধিকারী হবেন।

আপনার সর্বশেষ মন্তব্যের মাধ্যমে আমিও নিশ্চিত হলাম যে, কোন তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই নিছক বাগাড়ম্বর দিয়েই উসুলে তাফসীরের নামে এক আজব মূলনীতি (অর্থাৎ, “কোন ব্যাখ্যা কুরআন, সুন্নাহ, আছার, ফিকহ এর পরিপন্থী না হওয়া সত্তেও নিছক এ কারণেই অগ্রহনযোগ্য যে, এ ব্যাখ্যা অন্য কোন তাফসীর গ্রন্থে লেখা হয় নি”) ব্যক্ত করার চেষ্টা করেছেন।
এ আলোচনায় অংশ নেয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
আল্লাহ আমাদের সবাইকে দ্বীনের সঠিক তাৎপর্য উপলব্দি করার তাওফীক দান করুন। আমীন।

২১ ডিসেম্বর ২০১০; রাত ০১:৫৬

যুমার৫৩ লিখেছেন : “এই মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের চক্র ভেঙ্গে দিয়ে জনগণকে অতিরিক্ত দ্রব্যমূল্য থেকে মুক্তি দেওয়ার উদ্দেশ্যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘোষণা করেন যে, “শহরে বসবাসকারী কোন ব্যক্তি শহরের বাইরে থেকে আগত কোন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পণ্য কিনে পুনরায় তা শহরের বাসিন্দাদের কাছে বিক্রি করতে পারবেনা।”

… এই বিষয়টি কি আরো একটু ব্যাখ্যা করবেন? উদাহরণ হিসাবে ধরুন, ঢাকার শহরের বাইরে অনেক ডেয়ারি ফার্ম আছে। এখন ঢাকার এক লোক বাইরে থেকে আসা গোয়ালাদের কাছ থেকে দুধ কিনে নেয় ও সংরক্ষণ করে। তারপর সে ঢাকার লোকদের কাছে দুধ বিক্রি করে বেশি দামে। এরকম ক্ষেত্রে ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গী কী হবে?

২১ ডিসেম্বর ২০১০; দুপুর ০৩:৫৬

87281
অন্তর্দৃষ্টি লিখেছেন : প্রিয় যুমার ৫৩: এই বিষয়টির ব্যাখ্যায় আমি কয়েক লাইন পরেই লিখেছিলাম, “এ দীর্ঘ আলোচনায় এ বিষয়টি অত্যন্ত পরিষ্কার যে, ইসলাম দ্রব্যমূল্যের বিষয়টি অত্যন্ত সিরিয়াসলি নিয়ে থাকে। কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে যারা জনগণকে বর্ধিত মূল্যে পণ্য কিনতে বাধ্য করে ইসলাম তাদেরকে অভিশপ্ত ঘোষণা করে। বৃহৎ অর্থনীতির অনিবার্য ক্ষেত্র সমূহে কিছু নিয়ন্ত্রিত মধ্যস্বত্ত্বভোগীর অনুমতি দিলেও ইসলাম ভোক্তা ও উৎপাদকের মাঝখানে অযথা মধ্যস্বত্ত্বভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর ঘোর বিরোধী। ”

অতঃপর আপনি তার “আরো একটু ব্যাখ্যা” চেয়েছেন। আসলে আমি এখানে ইসলামী অর্থব্যবস্থার প্রাণসত্তা আলোচনা করে দেখানোর চেষ্টা করেছি যে, রাসুল (সাঃ) অযথা মধ্যমস্বত্বভোগীদের কবল থেকে গণমানুষকে মুক্তি দেয়ার জন্য কত সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছেন। এসব হাদীসের কেন্দ্রীয় বিষয় (central theme / focal point) হচ্ছে সাধারণ মানুষের উপকার সাধন এবং অতি নগন্য শ্রমে অত্যধিক মুনাফাখোরীর রাস্তা বন্ধ করণ। ইসলাম নির্বিচারে সবরকমের মধ্যস্বত্বকে নিষিদ্ধ করে নি। কেবল সেই প্রকার মধ্যস্বত্বভোগ নিষিদ্ধ যেখানে উপরোক্ত দু’টি বিষয়ের কোন একটি জড়িত।

আপনার উদাহরণের ব্যাপারে বলতে চাই, ইসলাম আমাদেরকে কিছু মৌলিক ও ব্যাপক নীতি দিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। এর উদ্দেশ্য হল, আমরা যাতে আমাদের প্রত্যেকের ভিতরকার “তাকওয়া”কে ব্যবহার করি।

“ঢাকার এক লোক বাইরে থেকে আসা গোয়ালাদের কাছ থেকে দুধ কিনে নেয় ও সংরক্ষণ করে। তারপর সে ঢাকার লোকদের কাছে দুধ বিক্রি করে বেশি দামে। এরকম ক্ষেত্রে ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গী কী হবে? ” এর উত্তরে আমি রাসূল (সাঃ) এর হাদীসের প্রাণসত্তার আলোকে বলতে চাই, “যদি এর মাধ্যমে শহরবাসীদেরকে চড়ামূল্যের ভোগান্তির শিকার হতে হয়, অথবা কেউ যদি এর মাধ্যমে নগন্য শ্রমে অত্যধিক মুনাফাখোরীর পথ ধরতে চায়, তাহলে আমি তার বৈধতার কোন কারণ দেখছি না। তবে অনেকসময় শহরবাসীর স্বার্থেই মধ্যস্থতাকারী অপরিহার্য হয়ে উঠে। সেরকম ক্ষেত্রে অত্যধিক মুনাফাখোরীর দোষে দুষ্ট না হলে, মধ্যস্থতার মধ্যে আমি আপত্তিকর কিছু দেখতে পাচ্ছি না। আল্লাহই ভালো জানেন।” ধন্যবাদ


[1] কারণ ক্ষেত্রে মূল মালিক বেতন ভাতা দিয়ে কর্মচারীর শ্রম টুকু কিনে নেয়। ফলশ্রুতিতে শ্রমের ফলের উপর মালিকের অধিকার জন্মায়। পক্ষান্তরে ডাউনলাইনের কোন ডিস্ট্রিবিউটর (বিশেষ করে অনেক নিম্ন পর্যায়ের) আপলাইনের ডিস্ট্রিবিউটরদের বেতনভুক কর্মচারী (paid employee) নয়।

[2] সদকায়ে জারিয়া মূলত এমন কোন কল্যাণ মূলক কাজ যার বিনিময় সওয়াব আকারে উক্ত ব্যক্তি তার মৃত্যুর পরেও ততদিন পেতে থাকে যতদিন কল্যাণ মূলক কাজের প্রতিক্রিয়া অব্যাহত থাকে।যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো মসজিদ নির্মাণ উপকারী জ্ঞান বিতরণ। যতদিন মসজিদ আবাদ থাকবে এবং যতদিন জ্ঞান থেকে মানুষ উপকার লাভ করবে ততদিন উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুর পরেও এর প্রতিদান সওয়াব আকারে পেতে থাকবে।

[3] মনে রাখতে হবে, বস্তুই কেবল ভাড়া দেয়ার যোগ্য যা ব্যবহার শেষে ( বস্তুটিই) আবার মূল মালিক কে ফেরৎ দিতে হয়; এবং ব্যাবহার বাবদ কিছু বিনিময় মূল মালিক কে দিতে হয়। বাড়ী গাড়ী ভাড়া এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। পক্ষান্তরে, এমন কোন বস্তু ভাড়া দেয়ার যোগ্যই নয় যা নিজে নিঃশেষিত না হয়ে উপকার দিতে পারে না (যেমন, টাকাপয়সা খাদ্যদ্রব্য) তবে তা ধার বা ঋণ (loan) আকারে দেয়া যেতে পারে; কিন্তু সে ক্ষেত্রে মূল বস্তুর অতিরিক্ত কোন রকমের সুবিধা নেয়া যাবেনা। কারণ, তা সুস্পষ্ট সুদ। রাসূল (সাঃ) বলেছেন, كل قرض يجر منفعة فهو ربا  অর্থ্যাৎ, যে ঋণ কোন প্রকার উপকার/লাভ নিয়ে আসে তা সুদ (Every loan drawing any benefit is riba)

[4] এখানে কেউ কেউ বলতে চেয়েছেন ব্যাংকের নতুন একাউন্ট হোল্ডার হতে বিদ্যমান একাউন্ট হোল্ডারের রেফারেন্স প্রয়োজন পড়ে। সেটি আপত্তিকর না হলে মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে রেফারেন্স বাধ্যতামুলক হলে অসুবিধা কোথায় ? এর জবাবে বলা যায়, ব্যাংকে রেফারেন্স দাবি করার পেছনে মূলত সিকিউরিটি ইস্যু জড়িত; সেখানে কোন প্রকার আর্থিক মতলববাজী নেই। অর্থ্যাৎ, ব্যাংকের রেফারীকে রেফারেন্সের কারণে কোন আর্থিক সুবিধা দেয়া হয় না পক্ষান্তরে, মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে উচ্চতর দালালের রেফারেন্স বাধ্যতামুলক হওয়ার পেছনে জঘন্য রকমের আর্থিক মতলববাজী হীনস্বার্থ জড়িত রয়েছে।

[5] নিসা, ২৯

[6] Asad: The Message of the Quran, pp 142-4

[7] তাফহীমুল কুরআন, সূরা নিসা, টীকা ৫০

[8] Asad: The Message of the Quran, pp 142-4

Leave a comment

Filed under Uncategorized

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s